নয়াদিল্লি:  চক্রাকারে আসতেই থাকে সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড়ের দল৷ প্রবল গতিতে সেই ঝড় লণ্ডভণ্ড করে দেয় জনজীবনকে৷ সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ ভাসিয়ে নিয়ে যায় উপকূল এলাকার সবকিছু৷ তেমনই ভয়াবহ আকার নিয়ে ২০০ কিলোমিটার গতিবেগে ঢুকছে ফণী৷ এর ভয়াবহতা আন্দাজ করে সতর্ক ভারত ও বাংলাদেশ সরকার৷ বিষধর সাপের ফণার মতো সে ছোবল মারবে৷

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন৷ ফণীর তাণ্ডব একসময় ঝিমিয়ে পড়বে৷ তারপর আবার এক নতুন সামুদ্রিক ঝড় তৈরি হবে৷ সেই ঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে বায়ু৷ বিবিসি রিপোর্টে বলা হয়েছে সামুদ্রিক ঝড় বায়ু এরপর হামলা করতে মুখিয়ে রয়েছে৷ এই নামকরণ করেছে ভারত৷

পরবর্তী কতগুলি ঝড়ের নাম হল- হিক্কা, কায়ার, মাহা, বুলবুল, পাউয়ান, আম্ফান

বঙ্গোপসাগর ও আরব সাগর উপকূলের আটটি দেশের ( বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, মায়ানমার, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড এবং ওমান) প্যানেল WMO/ESCAP অনুসারে একটি তালিকা থেকে পরবর্তী ঝড়ের নামকরণ করা হয়। এই আটটি দেশ একেকবারে আটটি করে ঝড়ের নাম প্রস্তাব করেছে। প্রথম দফায় মোট ৬৪টি নাম নির্ধারণ করা হয়েছে। যেমন ফণী নামটি বাংলাদেশের দেয়া। এরপরের ঝড়ের নাম হবে ভারতের প্রস্তাব অনুযায়ী বায়ু।

আপাতত FANI ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবের অপেক্ষায় বঙ্গোপসাগর লাগোয়া ভারত ও বাংলাদেশের বিশাল উপকূলীয় অঞ্চলের লক্ষ লক্ষ মানুষ৷ দুই দেশের সরকার ক্ষয় ক্ষতি রুখতে তৎপর৷ খোলা হয়েছে ত্রাণের জন্য বিশেষ শিবির৷ প্রস্তুত উদ্ধারকারী দল৷ গত ৪৩ বছরের মধ্যে এই সামুদ্রিক ঝড় সব থেকে শক্তিশালী আকার নিয়ে তেড়ে আসছে৷ ইংরাজি নাম FANI হলেও এর বাংলা উচ্চারণ হল ‘ফণী’৷