কলকাতা: ভোটের আগে মন্দিরে গিয়েছেন রাহুল গান্ধী। কৈলাসেও ঘুরে এসেছেন তিনি। তবুও তাঁর হিন্দুত্ব নিয়ে বারবার প্রশ্ন তোলেন বিরোধীরা। কিছুদিন রাহুলের গোত্রও প্রকাশ্যে আসে। তা সত্বেও ফের কংগ্রেস প্রেসিডেন্টের হিন্দুত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বিজেপি নেত্রী।

সোমবার পাঁচ রাজ্যের ফলাফল উপলক্ষে Kolkata24x7-এর বিশেষ ‘লাইভ’ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য বিজেপি কেয়া ঘোষ এবং প্রদেশ কংগ্রেস নেতা সোমদীপ ঘোষ। সেখানেই কংগ্রেস নেতার দিকে রাহুলের হিন্দুত্ব নিয়ে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন কেয়া।

তিনি বলেন, ”রাহুল কীভাবে হিন্দু হলেন? তাঁর গোত্র দত্তাত্রেয়ই বা কীভাবে হল?” কেয়া ঘোষের যুক্তি, ”রাহুল গান্ধীর মা সোনিয়া গান্ধী ক্যাথলিক। রাহুলের বাবা রাজিব গান্ধীর বাবা ছিলেন ফিরোজ গান্ধী ছিলেন পার্সি বা মুসলিম।” রাহুল বিভিন্ন রাজ্যে গিয়ে ধর্ম পরিবর্তন করেন বলে উল্লেখ করেন তিনি। নেত্রীর দাবি, বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক হিসেবে চিহ্নিত করা যায় না।

এর উত্তরে প্রদেশ কংগ্রেস নেতা সোমদীপ ঘোষ বিজেপির মন্দির তৈরির ইস্যুর কথা সামনে আনেন।

উল্লেখ্য, নির্বাচনের আগে রাজস্থানের পুষ্কর মন্দিরে পুজো দিতে গিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। ব্রহ্মা মন্দিরে পুজো দেন রাহুল। পুরোহিত জিজ্ঞাসা করলে উত্তরে রাহুল জানান, তিনি জাতিতে কাউল ব্রাহ্মণ আর তাঁর গোত্র দত্তাত্রেয়। পুজো দেওয়ার সময় তিনি পূর্ব পুরুষের পরিচয় সম্পর্কে অনেক নথিও পেশ করেন। সেখানে গান্ধী পরিবারের সব সদস্য সম্পর্কে তথ্য রয়েছে।

গত অক্টোবরে, মধ্যপ্রদেশের উজ্জ্বয়িনীতে মহাকালেশ্বর মন্দির পরিদর্শনে যান কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট। এরপরই তাঁর জাত ও গোত্র নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বিজেপি মুখপাত্র। তাঁত গোত্র কি? তাঁর পৈতেই বা কোথায়? এসব প্রশ্ন উঠতে শুরু করে বিরোধী মহলে।

গত বছর গুজরাতের সোমনাথ মন্দিরে গিয়েছিলেন রাহুল। সেখানে গিয়ে অ-হিন্দুদের তালিকায় নাম নথিভুক্ত করেন রাহুল গান্ধী। রাহুলের পরেই নাম ছিল আহমেদ প্যাটেলের নাম৷ এরপর বিজেপি দাবি করে, এর থেকেই প্রমাণ হয়ে যায় রাহুল হিন্দু নন৷ শুধু ভোটব্যাংক পলিটিক্সের জন্য মন্দিরে মন্দিরে গিয়ে তিনি মাথা ঠুকছেন৷

পুষ্করের মন্দিরের আগে আজমীরের দরগাতেও যান তিনি৷ ১৩ শতকের এই আজমীর শরিফের খাজা মঈনুদ্দিন দরগায় চাদর চড়ান৷