দেরাদুন: গত কয়েকদিন ধরে দেশের একাধিক জায়গায় আবহাওয়া খারাপ। বানভাসী চেহারা নিয়েছিল মুম্বই। কেরলে প্রবল বৃষ্টি ও খারাপ আবহাওয়ার জেরে দুর্ঘটনার মুখে পড়ে বিমান। এবার বৃষ্টির জেরে ধ্বংসস্তূপের চেহারা নিল উত্তরাখণ্ড।

উত্তরাখণ্ডের রুদ্রপ্রয়াগে নামল মেঘ ভাঙা বৃষ্টি। আর তার জেরেই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হল ওই অঞ্চলে। একাধিক ঘর-বাড়ি, রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে হতাহতের কোনও খবর নেই বলে জানা গিয়েছে।

তবে উত্তরাখণ্ডের চামোলি জেলার পঞ্চায়েতের এক আধিকারিকের মৃত্যু হয়েছে সেই বৃষ্টিতে। পাহাড় থেকে পাথর নেমে গাড়িতে পড়ে দুটি পৃথক দুর্ঘটনায় অন্তত ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যেই একজন ওই পঞ্চায়েতের আধিকারিক।

রাজধানী দেরাদুনেও ব্যাপক বৃষ্টি হয়েছে। একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে দেরাদুনের তপকেশ্বর মন্দিরে জল ঢুকে পড়েছে। আর ওই মন্দিরের সামনে দিয়ে যাওয়া তমসা নদীর জলও ফুলে-ফেঁপে উঠেছে।

অনেক জায়গায় এই বৃষ্টির জেরে ব্যাপক অসুবিধায় পড়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। নদীর উপর দিয়ে পার হওয়ার জন্য বাঁশের ব্রিজও ভগ্নপ্রায় দশায় রয়েছে। সেখান দিয়েই কষ্ট করে পার হচ্ছেন তাঁরা।

ইতিমধ্যেই ভূমিধসের আশঙ্কায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কেদারনাথ যাত্রা। কেদারনাথ-গৌরীকুণ্ডের ব্যাপক ধস নেমেছে গত কয়েকদিনে।

রুদ্রপ্রয়াগের পুলিশ সুপার নবনীত ভুল্লার জানিয়েছে, কেদার-গৌরীকুণ্ডের রাস্তায় একাধিকবার ধস নামার ঘটনা ঘটেছে। রাস্তা মেরামতের কাজ চলছে।

‘ক্লাউডবার্স্ট’ বা মেঘ-ভাঙা বৃষ্টির ক্ষেত্রে উল্লম্ব মেঘের দৈর্ঘ্য আরও অনেক বেশি হয়। জলধারণ ক্ষমতাও থাকে বেশি। ওই মেঘপুঞ্জ তৈরি হওয়ার প্রাকৃতিক নিয়মও ভিন্ন। ওই মেঘ সমতল থেকে পাহাড়ের গা বেয়ে ওঠে। যত ওঠে তত লম্বা হয়। একটা সময় যখন আর জলীয় বাষ্প ধরে রাখতে পারে না, তখন ভেঙে পড়ে।

এর আগে ২০১৩-তে উত্তরাখণ্ডের ভয়াবহ মেঘ ভাঙা বৃষ্টি হয়। আর তাতে কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। অন্তত ৩০০০-এর বেশি মানুষ আজও নিখোঁজ।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা