বাঁকুড়া: দেশজোড়া করোনাতঙ্ক। তবুও কমছে না নারী নির্যাতনের ঘটনা। ফের এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ালো বাঁকুড়ার ইন্দাস থানা এলাকার খটনগর এলাকায়।

পুলিশ জানিয়েছে,মৃতার নাম মৌমিতা মালিক (২৫)। মৃতার বাপের বাড়ির তরফে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ এই ঘটনায় মৃতার স্বামী শ্যাম সুন্দর সাঁতরা, শ্বশুর পরেশ সাঁতরা ও শাশুড়ি ছায়া সাঁতরাকে গ্রেফতার করেছে।

জানা গিয়েছে, বছর পাঁচেক আগে ইন্দাসের করিশুণ্ডা গ্রাম পঞ্চায়েতের জয়নগর গ্রামে মৌমিতা মালিকের সঙ্গে মঙ্গলপুরের খটনগর গ্রামের শ্যাম সুন্দর সাঁতরার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই মৌমিতা মালিকের উপর স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির অন্যান্য সদস্যরা শারিরীক ও মানসিক অত্যাচার করতো বলে অভিযোগ। বিষয়টি থানা-পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়।

মৃতার বাপের বাড়ির তরফে অভিযোগ করা হয়েছে, শুক্রবার দুপুরে জোর করে তাদের মেয়েকে বিষ খাওয়ানো হয়েছে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় কোতুলপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৌমিতাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

মৃতার দাদা নিমাই মালিক বলেন, বিয়ের পর থেকেই তার বোনেকে মারধোর করা হতো। ফলে এই ঘটনায় অতিষ্ট হয়ে বেশীরভাগ সময় বাপের বাড়িতেই থাকতো সে। তাদের বোনকে মেরে ফেলে ছেলের আবারও নতুন করে বিয়ে দেওয়ার ছক কষেই এই কাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

কাকা তুলসী মালিক বলেন, সামান্য ফোনে কথা বলা নিয়ে তার ভাঝির সঙ্গে জামাইয়ের ঝামেলা হয়। পরে বিষ খাওয়ার খবর পেয়ে তারা হাসপাতালে যান। তাদের মেয়েকে বিষ খেতে বাধ্য করা হয়েছে বলে দাবি করে তিনি দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। একই সঙ্গে ঘটনার তদন্তের পাশাপাশি নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে মৃতার স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়িকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।