একে তো গরমের তীব্র দাবদাহ তার ওপর করোনা ভাইরাসের দাপট। একদম দুর্বিষহ অবস্থা। বাইরে বেরোলেই রয়েছে করোনা সংক্রমণের ভয়। তাই মন ভালো রাখতে সুস্বাদু বিভিন্ন খাবার বাড়িতেই বানিয়ে নেওয়া ভালো। এর এই গরমে যদি একটু আইস ক্রিম খাওয়া যায় তবে তার থেকে ভালো আর কিছুই হতে পারে না। আর সেটা যদি হয় ম্যাঙ্গো আইস ক্রিম তবে তো আর কোনো কথাই নেই। আইস ক্রিম খেতে ছোট থেকে বড় সকলেই খুব ভালোবাসেন। আর বাড়িতে যদি বাচ্চা থাকে, তবে তো ম্যাঙ্গো আইস ক্রিম সহজেই তার মন জয় করে নিতে পারে। খুব সহজ উপায়েই বাড়িতেই বানানো যায় এই আইস ক্রিম। আসুন দেখেনি রেসিপি।

উপকরণ: এই ধরনের আইসক্রিম তৈরি করতে কোনো রকম ক্রিমের প্রয়োজন হবে না। লিকুইড দুধ ও গুঁড়ো দুধ দিয়েই বানানো যাবে। আইস ক্রিম বানাতে লাগবে ২ কাপ লিকুইড দুধ, ১/৪ কাপ গুড়ো দুধ, ১/৪ কাপ কনডেন্সড মিল্ক। এটা না থাকলে এর পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন চিনি। আর লাগবে ম্যাঙ্গো পিউরি।

কীভাবে বানাবেন: একটি পাত্রে তরল দুধ দিয়ে দিন। এবার একে একে গুঁড়ো দুধ ও কনডেন্সড মিল্ক দিয়ে পাত্রটি গ্যাস বসে জাল দিয়ে দুধটা এক কাপ পরিমাণ করে নিন। এবার দুধটা গ্যাস থেকে নামিয়ে ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে নিন। এবার ব্লেন্ডারে এক কাপ ম্যাঙ্গো পিউরি ও দুধটা দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। দেখবেন ঘন একটি মিশ্রণ তৈরি হয়েছে। এবার মিশ্রণটি আইস ক্রিম তৈরির পাত্রে ঢেলে দিন। এবার ওপর দিয়ে ফয়েল পেপার দিয়ে ঢাকা দিয়ে কাঠি ঢুকিয়ে দিন। ফ্রিজে রেখে দিন ১২ ঘণ্টার জন্য। ম্যাঙ্গো আইস ক্রিম তৈরী। এবার ফ্রিজ থেকে বের করে নিয়ে ২ মিনিট রেখে দিন। এবার ফয়েল পেপার তুলে নিন। এবার দেখবেন আসতে আসতে আইস ক্রিম আলগা হয়ে এসেছে। আপনার যদি তাড়া থাকে তবে আইস ক্রিমের পাত্রটি ফ্রিজ থেকে বের করার পর একটি পাত্রে জল দিয়ে তার ওপর বসিয়ে দিতে পারেন। বের করে পরিবেশন করুন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.