নয়াদিল্লি: গান্ধী পরিবারের বিরুদ্ধে এবার নয়া পদক্ষেপ মোদী সরকারের। কংগ্রেসনেত্রী সোনিয়া গান্ধীর তিনটি ট্রাস্টের বিরুদ্ধে একাধিক বেনিয়মের অভিযোগের ভিত্তিতে এবার তদন্ত শুরু করল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। ইতিমধ্যে অমিত শাহের মন্ত্রক তদন্তের জন্য একটি কমিটি তৈরি করেছে। জানা গিয়েছে, গান্ধী পরিবার দ্বারা পরিচালিত রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন, রাজীব গান্ধী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল ট্রাস্টের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করবে ওই কমিটি।

মোদী সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের বিরুদ্ধে সুর চড়াচ্ছে কংগ্রেস। করোনা ইস্যুতে কেন্দ্রকে শুরু থেকেই আক্রমণ করে আসছেন সোনিয়া, রাহুলরা। তারপর লাদাখে চিনা আগ্রাসন নিয়েও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ব্যর্থতার অভিযোগে সরব সোনিয়া গান্ধী-সহ গোটা কংগ্রেস শিবির।

কংগ্রেসকে এবার পাল্টা ‘জবাব’ দেওয়ার কৌশল গেরুয়া শিবিরের। সোনিয়া গান্ধী পরিচালিত তিনটি ট্রাস্টের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতির তদন্ত শুরু করেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অভিযোগ, কংগ্রেস আমলে গান্ধী পরিবার দ্বারা পরিচালিত রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন, রাজীব গান্ধী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল ট্রাস্টে ব্যাপক আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে।

প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর নামে তৈরি সংস্থাটির কর্ণধার সোনিয়া গান্ধী। ওই ট্রাস্টে যুক্ত রয়েছেন সোনিয়া-কন্যা প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। এমনকী প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-সহ কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদেরও অনেকে যুক্ত রয়েছেন ওই ট্রাস্টের সঙ্গে। এছাড়াও বাকি দুই ট্রাস্টের মাথাতেও রয়েছেন সোনিয়া গান্ধী নিজে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অভিযোগ, এই তিনটি ট্রাস্টেই ব্যাপক আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে। সরকার থাকাকালীন বেআইনিভাবে নানা সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়েছে ট্রাস্ট তিনটিকে। সেই কারণেই অভিযোগগুলির তদন্ত করতে চায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। মন্ত্রকের কয়েকজনকেও রাখা হয়েছে তদন্ত কমিটিতে। এছাড়াও ইডি ও সিবিআইয়ের কয়েকজন আধিকারিকও রয়েছেন এই কমিটিতে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ