নয়াদিল্লি: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের পাশাপাশি এনআরসি নিয়ে দেশ জুড়ে জারি প্রতিবাদ।এখনও দেশের বিভিন্ন জায়গায় চলছে প্রতিবাদ। আগেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানিয়েছিলেন যে, দেশ জুড়ে এনআরসি চালু হবে। এবার সামনে এল অন্য তথ্য।

লোকসভায় লিখিত জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, দেশ জুড়ে এনআরসি চালু করার কোনও পরিকল্পনা এখনই নেই। মঙ্গলবার লোকসভায় একথা জানানো হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই জানিয়েছেন, জাতীয় স্তরে এনআরসি চালু করার ব্যাপারে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

যেহেতু এনআরসি চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি, তাই এনআরসি হলে তাতে ভারতীয় নাগরিকদের উপর কী প্রভাব পড়বে, সে ব্যাপারেও কোনও প্রশ্ন উঠছে না।

সোমবার থেকে শুরু হয়েছে লোকসভার বাজেট অধিবেশন। আর লোকসভায় বেশিরভাগ বিরোধ দলই এনআরসি ও সিএএ নিয়ে জবাব চাইছে। বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদ জানান, ডিএমকে, সিপিএম, এনসিপি, তৃণমূল, সমাজবাদী পার্টি সহ সব দলই নোটিশ দিয়েছে যাতে লোকসভায় সব কাজকর্ম স্থগিত রেখে সিএএ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

কংগ্রেস নেতা বলেন, এনপিআর আগেও হয়েছে দেশে। কিন্তু তখন কোনও কঠিন প্রশ্ন ছিল না। আর এখন বাবার জন্ম তারিখও জানতে চাওয়া হচ্ছে। তাঁর দাবি, কেন্দ্রীয় সরকার এই বিষয়টাকে হিন্দু-মুসলিম ইস্যু করে তুলতে চাইছে।

সংসদে নাগরিকত্ব বিল পেশ করার সময় অমিত শাহ বারবার জোর দিয়ে বলেছিলেন যে, প্রথমে নাগরিকত্ব আইন ও পরে দেশ জুড়ে এনআরসি হবে।

কিছুদিন আগে প্রতিবাদে সামিল হয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, “গণতন্ত্রে আলোচনা হতেই পারে। কিন্তু আগে আইন তৈরি হয়ে যাবে, তারপর বলবেন আলোচনা করব, সেটা হতে পারে না। আগে এই আইন প্রত্যাহার করুন, তারপর আলোচনায় বসতে রাজি।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ