নয়াদিল্লি: স্পষ্ট হুঁশিয়ারি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের৷ মাইক্রোব্লগিং সাইট ট্যুইটার বন্ধ করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে৷ বলা হয়েছে কাশ্মীর নিয়ে কোনও ভুল তথ্য বা রটনা রটানোর চেষ্টা করা হলে, সরাসরি সেই ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হবে৷ ৩৭০ ধারা বিলোপের পর বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়াতে পারে ভুয়ো খবর, যা কাশ্মীরের পরিস্থিতিকে অশান্ত করতে পারে৷

সেই পরিস্থিতি মোকাবিলায় কড়া হাতে মাঠে নেমেছে কেন্দ্র৷ পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ট্যুইটার ব্যবহারকারীরা সাবধান৷ কোনও অ্যাকাউন্টে কাশ্মীর নিয়ে আপত্তিকর কিছু দেখলেই তা বন্ধ করে দেওয়া হবে৷ এই মর্মে ট্যুইটার কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদনও জানিয়েছে কেন্দ্র৷ ইতিমধ্যেই ট্যুইটারের ৭-৮টি অ্যাকাউন্টকে চিহ্নিত করা হয়েছে, যেগুলি থেকে কাশ্মীর বিরোধী মন্তব্য ও তথ্য ছড়ানো হচ্ছে বলে কেন্দ্রের অভিযোগ৷

আরও পড়ুন : পাশে নেই মুসলিম দেশ গুলি, স্বীকার করল পাকিস্তান

এই ৭-৮টি অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র৷ ট্যুইটার কর্তৃপক্ষকে এই বিষয়ে সহযোগিতা করতে বলা হয়েছে৷ দ্য হিন্দু সংবাদপত্রের প্রতিবেদনে এমনই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক৷

যে অ্যাকাউন্টগুলি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সেগুলি হল, @kashmir787 (Voice of Kashmir), @Red4Kashmir (Madiha Shakil Khan), @arsched (Arshad Sharif), @mscully94 (Mary Scully), @sageelaniii (Syed Ali Geelani), @sadaf2k197, @RiazKha61370907, and @RiazKha723

ট্যুইটারে কাশ্মীর সম্পর্কে ভুল তথ্য দিয়ে হিংসা ছড়ানো হচ্ছে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে এই মর্মে চিঠি পাঠায় জম্মু কাশ্মীর পুলিশ৷ তারপর থেকেই বিষয়টি তদন্তে নামে মন্ত্রক৷

কাশ্মীর পুলিশের আইজি এস পি পানি জানান, পুলিশের পক্ষ থেকে বারবার এই ধরণেক পোস্ট না করতে অনুরোধ করা হয়৷ কিন্তু লাভ হয়নি৷ তাই কড়া ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হয়েছে পুলিশ৷ উল্লেখ্য এর আগেই কেন্দ্র জানিয়েছিল শনিবার কাশ্মীরে অশান্তি ছড়ানো নিয়ে যে খবর প্রকাশিত হয়েছিল, তা সম্পূর্ণ ভুয়ো ও বিভ্রান্তমূলক৷ এই ধরণের খবরের প্রকাশ কোনওভাবেই বরদাস্ত করবে না কেন্দ্র সরকার৷

আরও পড়ুন : পাকিস্তানের সমব্যাথী মমতা, বললেন পাক সাংবাদিক

গত সপ্তাহে কাশ্মীরে কোনও অশান্তি হয়নি বলে পালটা বিবৃতি প্রকাশ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক৷ এই ধরণের খবর লাগাতার প্রকাশ করা হতে থাকলে, সংশ্লিষ্ট সংবাদমাধ্যমকে কড়া আইনি শাস্তির মুখে পড়তে হবে বলে জানানো হয়৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের উদ্দেশে নোটিশ পাঠানো হয়৷ তাদের প্রকাশিত সংবাদ কাশ্মীর উপত্যকায় নতুন করে অশান্তি তৈরি করতে পারে, এই মর্মে আইনী নোটিশ পাঠানো হয় সংবাদমাধ্যমগুলিকে৷