ফাইল ছবি

কলকাতাঃ  বছরের পর বছর ঘুরতে চলল! কিন্তু এখনও পর্যন্ত পিতৃত্বকালীন ছুটির বিষয়টি ঝুলেই রইল। ইতিমধ্যে পিতৃত্বকালীন ছুটির অনুমোদন দিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে অর্থ দফতর। কিন্তু তার ‘ম্যাচিং’ বিজ্ঞপ্তি জারিই করে উঠতে পারল না শিক্ষা দফতর। ফলে বহু শিক্ষক এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আর এর ফলে ক্রমশ ক্ষোভ বাড়ছে শিক্ষকদের।

অন্যদিকে, ইতিমধ্যে বিভিন্ন সরকারি দফতরে জারি হয়েছে এই সুবিধা। কিন্তু শিক্ষা দফতর কেন এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারল না তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

বাংলা এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর মোতাবেক, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে অর্থ দফতর বিজ্ঞপ্তি জারি করে পুরুষকর্মীদের ৩০ দিনের পিতৃত্বকালীন ছুটি মঞ্জুর করার কথা জানিয়েছিল। এর অধীনে স্কুল-কলেজ, পঞ্চায়েত, ইত্যাদি দপ্তরের কর্মী-আধিকারিকরা রয়েছেন। নিয়ম মতো অর্থ দফতর কোনও কিছুর অনুমতি দিলে, অন্য সরকারি দফতরগুলিকে তার একটি ‘ম্যাচিং’ বিজ্ঞপ্তি জারি করতে হয়। তারপরই তা বিভিন্ন দফতর কার্যকর করতে পারবে। কিন্তু এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থাই নিতে পারেনি শিক্ষা দফতর।

ফলে বিজ্ঞপ্তি জারি না হওয়ার ফলে বহু শিক্ষক যেমন ছুটি পাচ্ছেন না, আবার কেউ কেউ ছুটি নিলেও, তা অন্য খাত থেকে কেটে নেওয়া হচ্ছে। যার জেরে ক্রমশ অসন্তোষ বাড়ছে শিক্ষকদের মধ্যে। আর এর কারন হিসাবে গাফিলতিকেই দায়ি করছেন শিক্ষকরা।