স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : রাজ্য প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বুধবার অর্থাৎ ২৫ সেপ্টেম্বর এডিজি সিআইডি রাজীব কুমারের ছুটি শেষ হয়ে গিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার তাঁর কাজে যোগ দেওয়ার কথা। তবে এদিন রাজীব কুমার কাজে যোগ দেবেন কিনা, সেটা সময়ই বলবে। তাই আজ ভবানী ভবনেই বিশেষ নজর রাখবে সিবিআই। এমনটাই সূত্রের খবর।

ভবানী ভবনেই রয়েছে রাজ্যের সিআইডি দফতর। সেখানেই বসেন এডিজি সিআইডি রাজীব কুমার । সূত্রের খবর, ভবানী ভবনে রাজীব শেষ বার এসেছিলেন, যেদিন আদালত তার উপর থেকে রক্ষাকবচ তুলে নিয়েছিল। তারপর থেকে আর তার খোঁজ পাচ্ছে না সিবিআই।

প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার তথা এডিজি সিআইডি রাজীব কুমারকে খোঁজে বের করতে দিল্লি থেকে কলকাতায় আসেন সিবিআইয়ের বিশেষ টিম। কিন্তু রেজাল্ট শূন্য। কলকাতার আনাচে কানাচে, শহরতলির বিভিন্ন জায়গায় চিরনী তল্লাশি চালিয়েও খবর লেখা পর্যন্ত রাজীব কুমারের টিকিও ছুঁতে পারেনি সিবিআই। এ কথা এখন শোনা যাচ্ছে অনেক মানুষের মুখে। অনেক বলছেন রাজীব কুমার নিজের থেকে প্রকাশ্যে আসলেই, সিবিআই তাকে খুঁজে পাবে।

এখন প্রশ্ন উঠেছে রাজীব কুমারের ছুটি যদি ২৫ সেপ্টেম্বর শেষ হয়ে থাকে, তাহলে আজ বৃহস্পতিবার কি ভবানী ভবনে এসে কাজে যোগ দেবেন? সিবিআই তাকে গ্রেফতারের জন্য যেভাবে খুঁজে চলেছে, তাতে এখনই তার প্রকাশ্যে আসার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

অন্যদিকে ছুটি শেষে কাজে যোগ না দিলে, সেই জন্য রাজ্য সরকার তার কাছে কারণ জানতে চাইতে পারে। যদিও রাজীব কুমার ছুটিতে থেকেই আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন। বুধবার হাইকোর্ট জানিয়ে দিয়েছে, কলকাতা ও বিধাননগরের প্রাক্তন নগরপাল তথা রাজ্যের এডিজি সিআইডি রাজীব কুমারের মামলার শুনানি হবে আজ বৃহস্পতিবার৷ এদিন সকাল সাড়ে দশটায় বিচারপতি শহীদুল্লাহ মুন্সী ও বিচারপতি শুভাশিস দাশগুপ্তের ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানি চলবে বলে জানানো হয়েছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.