বোলপুর: বিশ্বভারতী নামের সঙ্গেই জড়িয়ে রয়েছে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আদর্শ, চিন্তাধারা । আচার রীতিনীতি সহ সব ক্ষেত্রেই বরাবর নিজ্বস্বতার ছাপ রেখেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়। আর নতুন বছর পরার সঙ্গে সঙ্গে ছেদ পড়ল এত বছর ধরে চলে আসা নিয়মে। সাপ্তাহিক ছুটির ক্ষেত্রে বিশ্বভারতী ছিল সকলের থেকে আলাদা। আর এবারে বদল ঘটল সেখানেই।

আগে উপাসনার জন্য বরাবর ছুটি থাকত বিশ্বভারতী। তবে নতুন বছর পরার সঙ্গে সঙ্গে সেই ছুটিকে তুলে দিল বিশ্বভারতী। তবে এত বছরধরে চলে আসা ঐতিহ্য হওয়ার কারণে পাঠভবন এবং রবীন্দ্র ভবনের ছুটি দেওয়া হল। আর বাকি সকল বিভাগের জন্য সাপ্তাহিক ছুটি ঘোষণা করা হল শনিবার এবং রবিবার।

মঙ্গলবার বিশ্বভারতীর তরফে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জানানো হয় বদলে যাচ্ছে সাপ্তাহিক ছুটি। জানানো হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ভবন এবং কলকাতার গ্রন্থন বিভাগ শনি ও রবিবার বন্ধ থাকবে। পাঠ ভবন বন্ধ থাকবে রবি ও বুধবার এবং প্রথামত রবীন্দ্রভবন বন্ধ থাকবে বুধ এবং বৃহস্পতিবার।

আর এই নয়া সিদ্ধান্তের ফলে কার্যত ক্ষুব্ধ হয়েছে আশ্রমিক থেকে শুরু করে কর্মী এবং পড়ুয়ারা। ক্ষুব্ধ হয়েছেণ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনীরাও। পাশাপাশি অনেকে এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছেন। অনেকে জানাচ্ছেন এই নয়া নিয়মের ফলে সুবিধা হবে অনেকটাই। কেননা অনেক সময় বিভিন্ন কারনে পড়ুয়াদের কোথাও যেতে হলে ক্লাস কামাই ছাড়া উপায় থাকে না। সেই অসুবিধা দূর হবে। এছাড়াও জানা গিয়েছে দিল্লির বিভিন্ন দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার ক্ষেত্রে অসুবিধা হচ্ছে। তাই এই নয়া সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর ফলে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে অসুবিধা হবে না।

এছাড়াও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করা সহজ হবে। তবে প্রশ্ন উঠছে বিশ্বভারতীর বিভিন্নভবনে বিভিন্ন দিনে ছুটি নিয়ে। এর ফলে অনেকে মনে করছেন সমস্যা বাড়বে। অর্থাৎ নয়া ছুটির সিদ্ধান্ত নিয়ে ইতিমধ্যেই ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বভারতীর অন্দরে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।