অটোয়াঃ  গোটা বিশ্বের উষ্ণতা যে হারে বাড়ছে তার প্রায় দ্বিগুণ হারে বাড়ছে কানাডার গড় তাপমাত্রা। দেশের ‘ফেডারেল গভার্নমেন্ট ক্লাইমেট’ এর প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমনটাই চাঞ্চল্যকর তথ্য। যা কি না যথেষ্ট চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে সে দেশের বিজ্ঞানীদের। প্রকাশিত প্রতিবেদনে সতর্ক করে বলা হয়েছে, কানাডার অনেকাংশে এরই মধ্যে তাপমাত্রার এই বৃদ্ধি পরিলক্ষিত হচ্ছে। দিন দিন তা আরও ভয়ঙ্কর হওয়ারই আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

১৯৪৮ সালে সর্বপ্রথম কানাডার গড় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। ওই সময় থেকে এখনকার বার্ষিক গড় তাপমাত্রা প্রায় ১ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে গিয়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা বাড়ছে নর্থ, প্রাইরিস এবং উত্তরাঞ্চলের ব্রিটিশ কলম্বিয়া অঙ্গরাজ্যে। কানাডার উত্তরাঞ্চলে বার্ষিক গড় তাপমাত্রা প্রায় ২ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে গিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, “মানুষের নানা কর্মকাণ্ড এবং বিভিন্ন প্রাকৃতিক কারণে কানাডার তাপমাত্রা বাড়ছে। তবে মনুষ্য সৃষ্ট কারণই বেশি দায়ী।”

কানাডায় তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে আবহাওয়ার চরমভাব বেশি দেখা যাচ্ছে। গ্রীষ্মকালে তাপমাত্রা অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়ার কারণে দেশজুড়ে তাপদাহ দেখা দিচ্ছে। এমনকি দেশের কোথাও কোথাও দাবানল সৃষ্টি হওয়ার প্রবল ঝুঁকিও থাকে। সমুদ্রের জলে এসিডের পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে এবং অক্সিজেন কমে যাচ্ছে। যার ফলে সমুদ্রের তলদেশে প্রাণী বৈচিত্র্য মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে। কানাডার আর্কটিক সমুদ্র গত কয়েক দশকের তুলনায় অনেক বেশি সময় ধরে বরফ শূন্য থাকছে। সমুদ্রের জলের উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলোতে বন্যারও আশঙ্কাও অনেক বেশি বেড়ে গিয়েছে।