নয়াদিল্লি: বার্ষিক ১২ হাজার টাকা অবধি রোজগেরে গরিব পরিবারদের বছরে ৭২ হাজার টাকা দেবে কংগ্রেস৷ লোকসভা ভোটের আগে রাহুল গান্ধীর এই ঘোষণায় বিজেপি শিবিরের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দিয়েছে৷ কংগ্রেস সভাপতির ন্যূনতম আয়ের ঘোষণাকে ‘সবথেকে বড় ভাওতাবাজি বলে তোপ দাগলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি৷

আরও পড়ুন: নীতি আয়োগের রাজীবকুমার উড়িয়ে দিলেন রাহুল গান্ধীর আর্থিক প্রতিশ্রুতি

সোমবার অরুণ জেটলি কংগ্রেসকে সমালোচনায় বিদ্ধ করেন৷ জানান, কংগ্রেসের অভ্যাস আছে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেওয়ার৷ কোনও রাজনৈতিক দল সাত দশক ধরে দেশের সঙ্গে এত বিশ্বাসঘাতকতা করেনি যা কংগ্রেস করেছে৷ উদাহরণ হিসাবে ইন্দিরা গান্ধীর গরিবি হঠাও এর কথা মনে করিয়ে দেন জেটলি৷

অর্থমন্ত্রী বলেন, রাহুলের নুন্যতম রোজগারের ঘোষণাই প্রমাণ করে দিয়েছে, তাঁর ঠাকুমা, বাবা ও সর্বোপরি আগের সরকার দেশ থেকে গরিবি হঠাতে কিছুই করে উঠতে পারেনি৷ তারা ব্যর্থ হয়েছে বলেই আজ এই ঘোষণা করতে হয়েছে৷

অরুণ জেটলির যুক্তি, বছরে প্রত্যেককে ৭২ হাজার টাকা দেওয়ার অর্থ মোদী সরকারের চালু প্রকল্পের মাধ্যমে সরাসরি অ্যাকাউন্টে জমা সুবিধার দুই তৃতীয়াংশ৷ অর্থাৎ কংগ্রেস মোদী সরকারের থেকে কম টাকা দিচ্ছে৷ এই প্রতিশ্রুতি তাই পুরোপুরি মিথ্যা৷

আরও পড়ুন: ১০ বছরে কী করে রাহুলের সম্পত্তি বেড়ে হয় সাড়ে নয় কোটি, প্রশ্ন বিজেপির

প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন নীতি আয়োগের ডেপুটি-চেয়ারম্যান রাজীব কুমারও৷ তাঁর বক্তব্য, রাহুল গান্ধীর বছরে ৭২,০০০ টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি মাধ্যমে ভোটে ক্ষমতায় এলে কাজ না করার ব্যাপারে অনুপ্রাণিত হবে জনগণ এবং আর্থিক শৃঙ্খলায় ফাটল ধরবে৷

রাজীবকুমার টুইট করে লেখেন, ‘‘পূর্বের রেকর্ড অনুসারে নির্বাচন জিততে চাঁদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি রয়েছে, কংগ্রেস সভাপতি যে প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছেন তা আর্থিক শৃঙ্খলায় ফাটল ধরাবে এবং কাজ না করার ব্যাপারে অনুপ্রাণিত হবে তাই এমনটা চালু না করা উচিত৷’’

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।