ফাইল ছবি

মথুরা: লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই সারাদেশে ঝড় উঠেছে গেরুয়া ঝড়। গো-রক্ষার নামে গণপিটুনি থেকে অনেক বেআইনি কাজ হয়েছে। গো-রক্ষা কমিটি তৈরি হয়েছে। প্রবল হিন্দুত্বের জোয়ারে ভেসে যাচ্ছে দেশের মানুষ। তার মধ্যেই সম্পূর্ণ অন্য এক ছবি দেখা গেল উত্তর প্রদেশের মথুরায়।

জাতি ধর্ম নির্বিশেষে কুদ্ভারা গ্রামের এক গরু মারা যাওয়া নিয়ে শোকপ্রকাশে সামিল হয়েছিল কয়েকশো মানুষ। যাদের মধ্যে ছিল মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজন। তৈরি করল সংহতির নয়া বার্তা। গরুটির মালিক ৭-৮ বছর আগে মারা গিয়েছিলেন। তারপর থেকেই সকলের ভালবাসায় ছিল ওই গরুটি।

উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী এর আগে পশুদের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে উদ্বোধন করেছেন নয়া প্রকল্প। জোর দিয়েছেন পশু সুরক্ষাতে। বিশেষত গো-রক্ষাতে। বিজেপির অন্যান্য অনেক সাংসদ গরু নিয়ে ভুল মন্তব্য করার জন্য হয়ে উঠেছেন কটাক্ষের কেন্দ্রবিন্দু। তার মাঝেই একটা ভিন্ন ছবি দেখা গেল।

কুশল প্রতাপ সিং নামে এক সমাজকর্মী জানিয়েছেন, হাকিম খান এবং তার পরিবারের লোকেরা ২ সেপ্টেম্বরে গরুটির শেষকৃত্যতে সরাসরি যোগদান করেছিলেন এবং সব নিয়ম পালন করেছিলেন। যদিও গ্রামের সকলেই গরুটিকে বেশ ভালবাসত। তাই তার মারা যাওয়ার পরে যেভাবে কোন মানুষের শেষকৃত্য করা হয় সেভাবেই গরুটির অন্তিম যাত্রার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

সকলের থেকে টাকা সংগ্রহ করা হয় এবং অনেককেই নিমন্ত্রণ করাও হয়েছিল। সমস্যা থাকার পরেও গ্রামের মানুষ এই অনুষ্ঠানে যোগদান করেছিল। শনিবার এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে প্রায় ৪০০০ জন গ্রামবাসী একত্রিত হয়েছিল।