নয়াদিল্লি: হিন্দি ভাষা হবে বাধ্যতামূলক৷ জাতীয় শিক্ষা নীতির খসড়ায় রয়েছে এই সুপারিশ৷ যা নিয়ে তুঙ্গে তরজা৷ আগেই যার বিরোধীতায় সুর চড়িয়েছিল তামিলনাড়ু৷ এবার সোচ্চার হল কর্নাটকের মখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেস নেতা সিদ্দারামাইয়া৷ আরোপিত এই ব্যবস্থা বন্ধের হুঁশিয়ারি দিয়েছে রাজ ঠাকরের নবনির্মাণ সেনা৷

কর্নাটকের ক্ষমতা নিয়ে সিদ্দারামাইয়া-কুমারস্বামী বিবাদ সকলের জানা৷ কিন্তু অ-হিন্দিভাষী রাজ্যেও বাধ্যতামূলক হবে হিন্দি৷ জাতীয় শিক্ষানীতির এই খসড়া প্রস্তাবের এক যোগে বিরোধীতা করছেন দু’জনেই৷ সিদ্দারামাইয়া সোমবার তাঁর প্রতিবাদ ট্যুইটে জানান, এই প্রস্তাব আমাদের অনুভূতির পরিপন্থী৷ তাঁর মতে জোড় করে হিন্দি আরোপের বিষয়টি অত্যন্ত নির্মম৷

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে ২০ লক্ষ জয় হিন্দ লেখা কার্ড পাঠাবে তৃনমূল

একই সঙ্গে সিদ্দারামাইয়ার দাবি, হিন্দি চাপিয়ে দেওয়ার বদলে কেন্দ্র যেন দেশের আঞ্চলিক সত্ত্বাকে স্বীকৃতি দেয় ও বিকাশের সুযোগ করে দেয়৷ প্রত্যেক মানুষ যেন তাদের মাতৃ ভাষা ও সংস্কৃতি সংস্কৃতি অনুযায়ী নিজেকে মেলে ধরার সুযোগ পান৷

কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী তাঁর ট্যুইটে জানান, তৃতীয় ভাষা শিক্ষার নামে যেন হিন্দি ভাষাকে জোড় করে আরোপ না করে কেন্দ্র৷ এবিষয়ে আরও মতামতের ভিত্তিতে যেন এগনো হয় তা দেখা উচিত৷

আরও পড়ুন: সারদা-কান্ডে ফের সিবিআই জেরার মুখে রাজ্য পুলিশের অফিসার

মহারাষ্ট্রের নবনির্বাণ সেনার তরফেও জাতীয় শিক্ষা নীতির বিরোধীতা করা হয়৷ তাদের তরফে বলা হয়, হিন্দি ভারতের রাষ্ট্র ভাষা নয়৷ তাই তা চাপিয়ে দেওয়ার যেন চেষ্টা করা না হয়৷ তবে কেন্দ্রের তরফে ইতিমধ্যেই মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর আশঙ্কা উড়ি বলেছেন, খসড়া রিপোর্ট এখনই অনুমোদন হচ্ছে না৷ একক্ষেত্রে আলোচনার অবকাশ রয়েছে৷

উল্লেখ্য, রাক্তন ইসরো চেয়ারম্যান কে কস্তুরীরঙ্গন কমিটির তৈরি খসড়া অনুযায়ী, স্কুল শিক্ষায় তিনটি ভাষা শেখানো প্রয়োজন। হিন্দিভাষী রাজ্যে হিন্দি, ইংরেজির পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীরা যে কোনও ভাষা বেছে নিতে পারে। অ-হিন্দিভাষী রাজ্যে হিন্দি, ইংরেজির সঙ্গে ছাত্রছাত্রীরা একটি আঞ্চলিক ভাষা শিখতে পারে। যার অর্থ, তামিলনাড়ু, অন্ধ্র, কেরলের মতো রাজ্যেও হিন্দি শেখা বাধ্যতামূলক।