ঢাকা: বাংলাদেশ থেকে বৃহত্তম ইলিশ চালানের প্রস্তুতি শেষ। সোমবার সকালে আন্তর্জাতিক সীমান্তের বেনাপোল হয়ে ভারতের পেট্রাপোলে ঢুকবে ১ হাজার ৪৫০ কেজি ইলিশ। সীমান্তের ওপারে পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দাদের জন্য আসন্ন দূর্গা পূজার শুভেচ্ছা হিসেবে পাঠানো হচ্ছে রসনার ষোল আনা মহার্ঘ্য উপহার।

বাণিজ্য মন্ত্রক সূত্রে খবর, গত বছর সরকার শারদ শুভেচ্ছা হিসেবে ভারতে ৫০০ টন ইলিশ রফতানির অনুমতি ছিল। এবার তার পরিমাণ দেড়গুণ বেশি।

পশ্চিমবঙ্গে ইলিশ রফতানির জন্য ইলিশ ৯টি সংস্থাকে অনুমতি দেওয়া হয়েছে।। যশোরের বেনাপোল সীমান্ত পেরিয়ে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪পরগনা জেলার পেট্রাপোলে পাঠানো হবে বাংলাদেশের ইলিশ।

তারপর সেই চালান যাবে কলকাতার বাজারে। ২০১২ সালের ১ আগস্ট ইলিশ সহ সব ধরনের মাছ রফতানি নিষিদ্ধ করে সরকার। ওই বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর ইলিশ ছাড়া অন্য সব মাছ রফতানিতে অনুমতি দেওয়া হয়। তবে ইলিশ রফতানি বন্ধ থাকলেও পাচার হওয়ার অভিযোগ দীর্ঘদিনের।

পাচার বন্ধের কৌশল হিসেবে ইলিশ রফতানির ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার বিষয়টি সরকার বিবেচনা করছে। বাংলাদেশে ইলিশের ভরা সময়। বাংলাদেশের জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালি ইলিশ ধরা পড়ছে। বঙ্গোপসাগর সাগরে ধরা পড়ছে টন টন ইলিশ।

উপকূলবর্তী ইলিশ অধ্যুষিত জেলা ভোলা, পিরোজপুর, বরগুনা, চাঁদপুর. বরিশাল ও পটুয়াখালীতে প্রচুর ব্যস্ততা।স্থানীয় মৎস ব্যবসায়ীরা জানাচ্ছেন রফতানির সুযোগ বাড়লে চোরাচালান কমবে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।