দিঘা: ট্যাঁকের কড়ি খরচ করে বাজার থেকে পছন্দের ইলিশটি তুলে নিচ্ছেন ৷ এ যেন রথ দেখা, আর কলা বেচার সামিল। নতুন ইংরেজি বছরের প্রথম দিন দিঘায় এসেছিলেন আনন্দ উৎসবে যোগ দিতে। সামিল হয়েছিলেন দু দিন আগেই। পরে ঘরে ফেরার দিন হাতে সমুদ্রের ইলিশ নিতে চেয়ে রীতিমতো দৌড়ঝাঁপ দেখা গেলো পর্যটকদের মধ্যে।

দিঘা ছাড়ার আগে মোহনার মাছ বাজারে গিয়ে হাতে ইলিশ তুলে নেওয়ার ছবি ধরা পড়ছে। সবারই জানা আছে, সিজনটা ইলিশের নয়। জানেন এই ঠান্ডায় সমুদ্রে সেভাবে ইলিশ ধরা পড়ে না মৎস্যজীবীদের জালে। সবকিছু জানলেও মন যেহেতু মানতে নারাজ৷

নতুন বছরের শুরুর দিন কিংবা পরদিন, দিঘা মোহনার মাছ বাজারে দেখা গেলো ইলিশ কেনার হিড়িক। হিড়িক বলে হিড়িক, একেবারে চড়া দামেই ইলিশ কিনছেন দিঘায় আসা পর্যটকরা। যারা নতুন বছরের আনন্দ নিতে দিঘায় এসেছিলেন, তাদের বেশিরভাগকেই বাড়ি ফেরার পথে দিঘা মোহনার মাছ বাজারে ঢুকে সমুদ্রের রূপালি শস্যের খোঁজ নিচ্ছেন দেখা গেল৷ পর্যটকরা বাড়ি ফিরছেন হাতে হাতে ইলিশ নিয়েই।

আরও পড়ুন – মুখ ফেরাচ্ছে নতুনরা, জয়নগরের মোয়ার উৎকৃষ্টতা ঘিরে উদ্বেগ

কেউ এসেছেন পরিবার পরিজনদের সঙ্গে। কেউ কেউ এসেছেন বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে দলবেঁধেই। দলের সকলেই যাতে ইলিশ হাতে নিয়ে বাড়ি ফিরতে পারে, সেটা ভেবেই একসঙ্গে পনের বিশখানা ইলিশ মাছ কিনেছেন চড়া দাম দিয়েই। তবে চাহিদা প্রচুর হলেও, স্বাভাবিকভাবে ইলিশের যোগান সে পরিমাণ নেই। যদিও দাম চড়া হলেও, অসময়ে ইলিশ হাতে পেয়ে দারুণ খুশি ইলিশপ্রেমী পর্যটকরা৷

বছরের শেষ দিন এবং পয়লা জানুয়ারি দিঘায় কাটিয়ে ফেরার পথে গাড়িটা দিঘা গেটের আগে আগে বামদিকে টার্ন নিয়ে মোহনার মাছ বাজারে ঢুকে পড়া, দরদাম করে ইলিশ কেনা। তারপর সটান দিঘা ছেড়ে বাড়ির পথ ধরা। যেহেতু মাছ বাজারে ইলিশের যোগান কম তাই দাম কিন্তু ভীষণ চড়া। ৫০০ গ্রাম ওজনের ওপরে ইলিশের দাম প্রায় ১৪০০/১৫০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এক কিলো ওজনের ইলিশের দাম দু হাজার টাকারও বেশি দাম।