স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দুর্গাপুজো কমিটিগুলিকে রাজ্য সরকারের অনুদান দেওয়া নিয়ে মামলার শুনানি আজ৷ কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপিত দেবাশিস করগুপ্ত ও বিচারপতি শম্পা সরকারের ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হবে৷

গত মাসের ১৯ তারিখ এ নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের হয়েছিল৷ গত শুক্রবার প্রথমবার মামলার শুনানি হয়৷ শুরুতেই কলকাতা হাইকোর্টে বড় ধাক্কা খেয়েছিল রাজ্য সরকার৷

আরও পড়ুন: কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরির অফিসের পাশে বোমাতঙ্ক!

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবার রাজ্যের ২৮ হাজার দুর্গাপুজো কমিটিকে অনুদান দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন৷ প্রতিটি পুজো কমিটিকে ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে বলে তিনি জানান৷ এর জন্য রাজ্য সরকারের মোট ২৮ কোটি টাকা খরচ হবে৷

তাঁর এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেই হাইকোর্টে মামলা হয়৷ শুনানির শুরুতেই হাইকোর্ট মুখ্যমন্ত্রীর ওই ঘোষণার উপর স্থগিতাদেশ জারি করে৷ জানিয়ে দেয়, পরবর্তী শুনানি পর্যন্ত কোনও পুজো কমিটিকে ওই অনুদান দেওয়া যাবে না৷ একই সঙ্গে এ নিয়ে রাজ্যের হলফনামা জমা দেওয়ার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট৷ কোন খাত থেকে এই টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে, সেটাই রাজ্যকে ওই হলফনামায় জানাতে হবে৷

আরও পড়ুন: পুজোর মেনুতে থাক কম ফ্যাটের খাবার

আজ, মঙ্গলবার সেই হলফনামা জমা দেওয়ার দিন৷ রাজ্য সরকার কী জানায়৷ আর তার ভিত্তিতে কলকাতা হাইকোর্ট কী নির্দেশ দেয়, সেদিকেই তাকিয়ে গোটা রাজ্য৷ রাজ্য সরকারকে আদালতে আবারও ভর্ৎসিত হতে হবে কি না, সেই প্রশ্নই এখন উঠছে৷

কারণ, শুনানির শুরুতেই রাজ্য সরকারের আইনজীবীকে হাইকোর্টের ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হয়েছিল৷ কারণ, দুর্গাপুজো কমিটিগুলিকে গত ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে অনুদান দেওয়া শুরু করে রাজ্য৷ অথচ হাইকোর্টে তার আগেই এ নিয়ে মামলা দায়ের হয়েছে৷ মামলা দায়ের হওয়ার পরও কীভাবে অনুদান দেওয়া শুরু হল, সেই প্রশ্নই তুলেছিল কলকাতা হাইকোর্ট৷ আইনজীবীদের ধারণা, এদিন রাজ্য সরকারকে সেই প্রশ্নেরও উত্তর দিতে হতে পারে৷

আরও পড়ুন: রাস্তার মাঝে কেন দেওয়া হয় হলুদ বা সাদা দাগ?

তবে শুক্রবার দুর্গাপুজোয় অনুদান নিয়ে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, দেওয়া টাকা তিনি ফেরাবেন কীভাবে?

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।