স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বঙ্গবাসী কলেজের প্রাত:বিভাগের সহকারী অধ্যক্ষ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট৷ জানা গিয়েছে, আগামি ৯ ই অগাষ্ট পর্যন্ত সহকারী অধ্যক্ষ নিয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছেন বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী।

মামলার বয়ান অনুযায়ী মামলাকারী ডক্টর সালেহা বেগম কলেজ সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। চলতি বছরের ১৩ই জুলাই কলেজ সার্ভিস কমিশনে কাউন্সিলিং-এর জন্য ডক্টর সালেহা বেগমকে ডাকা হয়। এর পর তাঁকে পছন্দের কলেজ নির্বাচিত করার জন্য বলা হয়। তিনি বঙ্গবাসী কলেজের প্রাত: বিভাগ পছন্দ করেন। এর পর কলেজ সার্ভিস কমিশন জানায় বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী তাঁকে ওবিসি(বি) সার্টিফিকেট জমা দিতে হবে।

আরও পড়ুন : শহরের দুই উড়ালপুলের হাল বেহাল, চিন্তায় কেএমডিএ

মামলাকারী জানান তাঁকে যখন ইন্টারভিউ বোর্ডে ডাকা হয়েছে, তাহলে কেন আবার ওবিসি(বি) সার্টিফিকেট চাওয়া হচ্ছে। এর উত্তরে কাউন্সিলিং টিমের সদস্যরা জানান, ৭ই জুন ২০১৯-এর মধ্যে যদি সার্টিফিকেট জমা না দেন তাহলে ওই পদে অন্য কাউকে নিয়োগ করা হবে।

গত ৮ই জুন ২০১৯-এ কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন ডক্টর সালেহা বেগম। বুধবার মামলা শুনানি চলাকালীন মামলাকারীর পক্ষের আইনজীবী আশিস কুমার চৌধুরী আদালতে জানান কিসের ভিত্তিতে কলেজ সার্ভিস কমিশনের পক্ষ থেকে এই ধরনের সার্টিফিকেট চাওয়া হল। এই ওবিসি(বি) সার্টিফিকেটটি ইস্যু করেছিলেন জেলা শাসক।

আরও পড়ুন : দুর্ণীতির জন্যই মানুষ বিজেপি-মুখী হয়েছে, বিস্ফোরক খোদ তৃণমূল বিধায়ক

এদিন কলেজ সার্ভিস কমিশনের পক্ষ আদালতে জানানো হয় এটা সম্পূর্ণ রাজ্য সরকারের বিষয়। কারণ এই সার্টিফিকেট দেওয়া হয় পরিবারের আয়ের ভিত্তিতে। এবং এই সার্টিফিকেট পুনর্নবীকরণের ব্যবস্থা আছে। সব পক্ষের বক্তব্য শোনার পর বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী আগামী ৯ই অগাষ্ট পর্যন্ত নিয়োগের ওপর অন্তর্বতীকালীন স্থগিতাদেশ দেন।

উল্লেখ্য তপশিলি জাতি, উপজাতি সংশাপত্র প্রাপকদের সারা জীবন এই সংশাপত্র ব্যবহারের ক্ষেত্রে বেশ কিছু নিয়মাবলি রয়েছে। যার জেরেই আটকে গিয়েছে এই নিয়োগ বলে খবর৷