নয়াদিল্লি: মারণ কোভিড ১৯ এর মূলে রয়েছে নোভেল করোনাভাইরাস৷ এটা সকলেরই জানা৷ কিন্তু ক্রমেই করোনা যেন একটি জটিল ধাধায় পরিণত হচ্ছে৷

আগে এই রোগের সঙ্গে বেশ কিছু পোস্ট-কোভিড লক্ষণ যুক্ত ছিল৷ যেমন হজমজনিত সমস্যা, কাশি, পোস্ট-ট্রমামেটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার (পিটিএসডি), স্ট্রেস, বুকে ব্যাথা, হতাশা, ঘুমের কম, উদ্বেগ, গাঁটে ব্যথা, ক্লান্তি, শ্বাসকষ্ট ও স্নায়বিক সমস্যা, নিউমোনিয়া, হার্টের সমস্যা বা ফুসফুসের ফাইব্রোসিস। কিন্তু এখন এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মিউকোরমায়কোসি৷ যা একটি গুরুতর বা বিরল ছত্রাকের সংক্রমণ৷ এটি মিউকর্মাইসেটস নামে পরিচিত৷

পরিষ্কার দেখা গিয়েছে SARS-CoV-2 ভাইরাস শুধু শ্বাসযন্ত্রকেই আক্রমণ করে না৷ এটি রক্তনালী ও শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে আক্রান্ত করে৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভিড-১৯ সংক্রমণ বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের সংক্রমণের সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারে৷ বেশ কয়েকটি হাসপাতাল কোভিড-১৯ রোগীদের মধ্যে মিউকোরমায়কোসিস দেখা গিয়েছে৷ এই বিষয়ে ড. অমিত কিশোর বলেন, মিউকোরমায়কোসিস একটি মারাত্মক ছত্রাক৷

মিউকোরমায়কোসিস কি?
মিউকোরমায়কোসিসকে সংক্রমণ হিসাবে উল্লেখ করা যেতে পারে৷ যা নাসারন্ধ্র, গলা থেকে চোখ, মস্তিষ্ক এবং সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে৷ আর এটি একবার মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়লে তা জীবনের জন্য ঝুঁকি হয়ে উঠতে পারে৷ দ্রুত অসুস্থ হয়ে পড়েন রোগী৷ এমনকী একাধিক অঙ্গ বিকলও হতে পারে৷ সর্বোপরী, মিউকোরমায়কোসিস রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে হ্রাস করে অন্যান্য রোগীকে সংক্রমণ প্রবণ করে তোলে৷

এর লক্ষণ কী?
এই বিরল ছত্রাকের সংক্রমণে আক্রান্ত রোগীদের নাক বন্ধ হওয়া, দাঁত থেকে পুঁজ বের হওয়া, চোয়ালের হাড়ের ফুলে ওঠা, চোখ ফুলে ওঠা, গলা ভেঙে যাওয়া এমনকি ফোলা জায়গায় কালো ছোপ দেখা যেতে পারে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।