মুম্বই : ১৪-১৫ নভেম্বর আসার আগেই আরও এক খুশির খবর নিয়ে হাজির ‘Soon to be hitched’ কাপল রণভীর এবং দীপিকা৷ ২৮ নভেম্বর মুম্বইতে ধুমধাম করে হবে তাঁদের ওয়েডিং রিসেপশন৷ প্রকাশ্যে এল মুম্বইয়ের রিসেপশনের সেই কার্ড৷ প্রথমদিকে শোনা গিয়েছিল ডিসেম্বরের ১ তারিখ হবে মুম্বইয়ের রিসেপশন পার্টি৷ এখন এসব জল্পনা৷ ২১ নভেম্বর দীপিকার হোমটাউন বেঙ্গালুরুতে হবে একটি রিসেপশন৷ এবং ২৮ নভেম্বর মুম্বইয়ের গ্র্যান্ড হ্যায়াতে হবে আরও একটি রিসেপশন৷

গোটা বলিউড হাজির থাকবেন সেই রিসেপশন পার্টিতে৷ কখনও নভেম্বর তো কখনও ডিসেম্বর। কখনও সুইজারল্যান্ড তো কখনও আমচি মুম্বই। বছরের শুরু থেকেই টিনসেলের হটেস্ট গসিপ রণভীর-দীপিকার বিয়ে। বিভিন্ন সময় নানা জল্পনার ধুলো উড়েছিল বলিপাড়ায়। এই সমস্ত জল্পনায় দাড়ি টেনে ১৪ এবং ১৫ নভেম্বর সাত পাকে বাঁধা পড়তে চলেছেন ‘রামলীলা’ কাপল। ট্যুইটারে ওয়েডিং কার্ডের ছবি আপলোড করে খুশির খবরটি জানিয়েছেন সকলকে। ইতালির লেক কোমোতে বসবে বিয়ের আসর৷

টিনসেল টাউনে ‘পদ্মাবতী’ এবং ‘খিলজি’র বিয়ের নিয়ে কৌতূহলের শেষ নেই৷ বিয়ের ভেনু, পোশাক, গয়না, অথিতিদের তালিকা, সবই নিয়েই শুরু হয়েছে বিভিন্ন খবরাখবর৷ ইতালির লেক কোমোতে বিয়ে, সব্যসাচীর ডিজাইন করা লেহেঙ্গা কিংবা শাড়ি, সোনা-হীরে ছেড়ে রূপোর গয়না, এছাডা়ও অসংখ্য বিয়ের আপডেট পেয়ে চলেছে রণ-দীপির ভক্তকূল৷ বলিপাড়ার সেরা বিয়ে, প্রতিটি জিনিস হটকে না হলে কী চলে৷ তাই জানা গিয়েছে বিয়ে হবে দু’বার৷ অর্থাৎ ১৪ তারিখ হবে কোঙ্কানি স্টাইলে বিয়ে এবং ১৫ তারিখ সিন্ধি রীতি নীতি মেনে৷

এক সময় বলি অন্দরের খবর ছিল, ‘পদ্মাবত’ মুক্তির সপ্তাহ খানেক আগে থেকেই শুরু হয়েছে রণভীর ও দীপিকার বিয়ের প্রস্তুতি৷ রণভীরের বাবা-মা সেই সময়, সব্যসাচীর একটি শাড়ি উপহার দেন দীপিকাকে। আপাতত দীপিকা এবং রণভীর তাঁদের পরিবার সহ পৌঁছে গিয়েছেন ইতালিতে৷ তাঁর কিছু ছবিও প্রকাশ্যে এসেছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।