স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : করোনায় আক্রান্ত গোটা বিশ্ব। কাজ-কর্ম-আপিস-আদালত সবকিছু একেবারে স্তব্ধ। বাড়িতে বাড়িতে পুজোও এক্কেবারে লাটে উঠেছে এই covid-19 ভাইরাসের ঠেলায়। এটি এমনি এক ভাইরাস যাকে পরাস্ত্র করার একটাই মুল মন্ত্র, সোসাল ডিস্ট্যান্সিং। নিয়ম মেনে ঘরে থাকতে পারলেই হারানো যাবে এই ভাইরাসকে।

আর তাই জন্ম থেকে মৃত্যু কোন কাজেই মিলছে না কোন পুরোহিত। মানুষজন পড়েছে দেদার মুশকিলে। কেউ কেউ তো পুরুতমশাইকে ফোন করতেই শুনতে হচ্ছে, “না যেতে পারছিনা”! আর ঠিক এই সময়েই “LIVE PUJO” সিস্টেম চালু করে কিছুটা মুশকিল আসান করার চেষ্টা করেছে ওয়েবেল-বিসিসিআই, টেক ইনক্যুবেশন সেন্টার, সেক্টর-ফাইভ, কোলকাতায় অবস্থিত একটি স্টার্টাপ সংস্থা 10karma.com। প্রতিষ্ঠানের ফাউন্ডার এবং সিইও মিঃ অনিরুদ্ধ দেবনাথ এমনটাই জানাচ্ছেন আমাদেরকে।

সত্যনারায়ন পুজো থেকে মঙ্গলচন্ডীর পুজো কিংবা নামকরনের জন্যে যজ্ঞ্, সমস্তটাই হবে একেবারে নিষ্ঠাভরে। 10karma.com ওয়েবসাইট থেকে “LIVE PUJO” অপশনে বুক করলে পুরোহিত নিজে থেকেই আপনাকে ফোন করে সমস্ত নির্দেশিকা বুঝিয়ে দেবেন। আর ফোনের ওপারে থাকা পুরোহিতের মন্ত্রেই আপনাকে সেরে ফেলতে হবে আরতি এবং অঞ্জলি।

সংস্থার তরফে আরও জানানো হয়েছে, এই লকডাউন পর্ব শেষ হলে এবং পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলে পুরোহিতরা আবার আগের মতোই পৌছে যাবেন আপনার বাড়িতে।“সোসাল ডিস্ট্যান্সিং মেনে ঘরে থেকেও যদি এইভাবে মানুষজনকে পরিষেবা দেওয়া যায়, তবে মন্দ কি!”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.