যে কোনও ধরণের স্বাস্থ্য সমস্যার জন্য আয়ুর্বেদ চিকিত্সা একটি অন্যতম সেরা বিকল্প হিসেবে বিবেচিত হয়। এমন ৫ টি অতি সাধারণ আয়ুর্বেদিক জিনিস রয়েছে, যা প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে এবং সংক্রমণ থেকে শরীরকে দূরে রাখে।

অশ্বগন্ধা – অশ্বগন্ধাকে আয়ুর্বেদিক ওষুধগুলির রাজা বলা হয়। অশ্বগন্ধা শরীরের ফোলাভাব এবং জ্বালাভাব হ্রাস এবং অনাক্রম্যতা বাড়াতে খুব উপকারী। গবেষণায় দেখা গেছে যে অশ্বগন্ধা উদ্বেগকে হ্রাস করে যা ভালো ঘুমের পক্ষে ফলদায়ক। অশ্বগন্ধা রক্তে শর্করাকেও নিয়ন্ত্রণ করে।

হলুদ- হলুদকে সবচেয়ে কার্যকর আয়ুর্বেদিক প্রতিকারক হিসাবে বিবেচনা করা হয়। ক্যান্সার, হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করার পাশাপাশি কাশি এবং সর্দি-র জন্য সবচেয়ে কার্যকর নিরাময় হলুদ। হলুদে কারকুমিন রয়েছে যা অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের প্রধান উত্স।

ব্রাহ্মী- ব্রাহ্মী ব্রেন বুস্টার নামেও পরিচিত। ব্রাহ্মীর গাছটি ওষুধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়। ব্রাহ্মী প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শরীরকে সংক্রমণ এবং রোগ থেকে দূরে রাখে। এটি নিয়মিত সেবন করলে হজমের সমস্যা দূর হয়।

নিম– নিমের মধ্যে রোগ প্রতিরোধকারী গুণ রয়েছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর সাথে সাথে শরীর ভিতরে থেকে ঠাণ্ডা করে নিম। নিমের একটি শক্তিশালী অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল প্রভাব রয়েছে যা বহু ধরণের ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস এবং সংক্রমণের চিকিত্সায় কার্যকর।

তুলসী– ভারতের প্রায় প্রতিটি ঘরে তুলসী দেখা যায়। হিন্দু ধর্মে তুলসী গাছকে পুজো করা হয়। তুলসীকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সেরা ওষুধ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। হাঁপানি, ব্রঙ্কাইটিসের মতো শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমণের চিকিত্সায় তুলসী খুব কার্যকর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।