নয়াদিল্লি: কেন্দ্রের নয়া কৃষি আইনের পক্ষে এবার সওয়াল বিজেপির অভিনেত্রী-সাংসদ হেমা মালিনীর। একইসঙ্গে দিল্লি ঘেরাও করে রাখা লক্ষ-লক্ষ কৃষককে বিভ্রান্ত করে আন্দোলন চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ তুললেন মথুরার সাংসদ।

সংবাদসংস্থা এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হেমা মালিনী বলেন, ‘‘আন্দোলনকারী কৃষকরা জানেনই না যে তাঁরা ঠিক কী চান। কৃষি আইনে কী সমস্যা নিয়েও তাঁরা ওয়াকিবহাল নন। শুধুমাত্র কেউ বা কারা তাঁদের আন্দোলন করতে বলেছেন বলেই তাঁরা আন্দোলনে বসে আছেন।’’

মঙ্গলবারই নয়া কৃষি আইন নিয়ে বড়সড় ধাক্কা খেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। বিতর্কিত কৃষি আইন কার্যকর করার উপরে স্থগিতাদেশ জারি করেছে সুপ্রিম কোর্ট। গত কয়েকদিন ধরে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে এই সংক্রান্ত মামলার শুনানি চলছিল।

মঙ্গলবার মামলার শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ কৃষি আইন কার্যকর করার উপরে স্থগিতাদেশ জারি করেছে। একই সঙ্গে চার বিশেষজ্ঞকে নিয়ে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত। যে কমিটি আইন নতুন তিনটি আইন খতিয়ে দেখবে।

শুধু তাই নয়, এই কমিটি সবপক্ষের মতামত শুনবে। সেখানে আন্দলরত কৃষকদের যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ দেওয়া না পর্যন্ত তিনটি কৃষি আইনের উপরে স্থগিতাদেশ বজায় থাকবে। কৃষি আইন নিয়ে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের পর কৃষক সংগঠনের নেতাদের দাবি, তাঁদের আন্দোলনেরই জয় হয়েছে।

এদিকে, খোদ সুপ্রিম কোর্ট যখন কেন্দ্রের তৈরি নয়া আইনে স্থগিতাদেশ জারি করেছে তখনই বিজেপি সাংসদ হেমা মালিনীর মন্তব্য ঘিরে নয়া বিতর্ক তৈরি হয়েছে। কৃষকদের বিভ্রান্ত করে আন্দোলন চালিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে দাবি করেছেন হেমা। ইতিমধ্যেই হেমা মালিনীর কৃষকদের নিয়ে এই মন্তব্য ঘিরে নিন্দার ঝড় উঠেছে বিভিন্ন মহলে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.