কলকাতা : পশ্চিমবঙ্গে একদিনে লক্ষাধিক মানুষ হোম কোয়ারেন্টাইনে। এমনটাই স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিনে প্রকাশ করা হয়েছিল । যা নিয়ে চারিদিকে হৈ চৈ পরে যায়। মঙ্গলবার ৩১ মার্চ স্বাস্থ্য ভবনের প্রকাশিত বুলেটিনে বলা হয়েছে, গত চব্বিশ ঘন্টায় হোম সার্ভিলেন্স তথা গৃহ নজরে রাখা হয়েছে আরও ১, ৫০, ৪৮২ জনকে। অর্থাৎ একদিনেই সংখ্যাটা এক লাফে এক লক্ষ ছাড়াল।

এই তথ্য দেখে স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা চমকে উঠে। পরে তারা জানতে পারে বুলেটিনে সংখ্যাটা ভুল দেওয়া হয়েছে। তড়িঘড়ি ফের বুলেটিন প্রকাশ করা হয়। সেখানে দেখা যায় গৃহ নজরে ১ লক্ষ ৫০ হাজার ৪৮২ জন নয়। গৃহ নজরের আসল সংখ্যা হল ৫৭ হাজার ৪০৪ জন । অর্থাৎ একদিনে বেড়েছে ১০ হাজার ৩১৩ জন।

স্বাস্থ্য ভবনের ওই দিনের বুলেটিনে আরও বলা হয়েছে, বর্তমানে বাংলার বিভিন্ন হাসপাতালে ২৩৮ জনকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। এদিকে মঙ্গলবার বেলঘরিয়ার এক বাসিন্দার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বুধবার তার মৃত্যু হয়। ৫৭ বছর বয়সী ও‌ই ব্যক্তির ভিন দেশে বা ভিনরাজ্যে যাওয়ার কোনও ইতিহাস নেই। তিনি রথতলা এলাকায় একটি রোল-চাউমিনের দোকান চালান বলে জানা গিয়েছে।

কীভাবে তিনি আক্রান্ত হলেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। গত ২৩ মার্চ থেকে তিনি অসুস্থ। সোমবার তাঁর নমুনা পরীক্ষা হয়। মঙ্গলবার রিপোর্ট এসেছে। তাতে তাঁর শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। বুধবার তার মৃত্যু হয়েছে। তাঁর পরিবার পরিজনকেও কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।