নয়াদিল্লি: আগামী চার থেকে পাঁচদিনের মধ্যে কেরল ও তামিলনাডুতে ধেয়ে আসছে বৃষ্টি। বাদ পড়বে না পন্ডিচেরিও। এমনটাই সতর্কবাণী শোনাল আইএমডি বা ইন্ডিয়া মেট্রোলজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট।

আইএমডি জানিয়েছে, উত্তর তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশের উপকূল ও তার আশেপাশের এলাকায় একটি ঘূর্ণিঝড়ের পরিবেশ তৈরি হচ্ছে। অন্য একটি টুইটে বলা হয়েছে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে তামিলনাড়ুতে বিচ্ছিন্ন ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। জানানো হয়েছে ৩০ অক্টোবর, ১ নভেম্বর এবং ২ নভেম্বর এই ৩ দিন তামিলনাডুতে ব্যাপক বৃষ্টিপাত হতে পারে।

একই সঙ্গে ইন্ডিয়া মেট্রোলজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট জানাচ্ছে, ১ নভেম্বর কেরল ও মাহেতে এবং এবং ২ নভেম্বর কর্ণাটকের দক্ষিণ ভাগে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন – ফের মনুয়া কান্ডের ছায়া, প্রেমিকের সঙ্গে যোগসাজশে স্বামী খুনে অভিযুক্ত স্ত্রী

তবে আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে উত্তর-পশ্চিম, পশ্চিম, মধ্য ও পূর্ব ভারতের বেশিরভাগ এলাকায় আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে। ফলে দুর্গাপুজোয় বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও বাংলা এবার লক্ষ্মীপুজোয় হয়তো খরা পেতে চলেছে।

বৃহস্পতিবার বেশ কিছুটা বেড়েছে এ রাজ্যে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের অন্য জেলার তাপমাত্রা। বৃহস্পতিবার সকালে আসানসোলের তাপমাত্রা ২০.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বাঁকুড়ায় ২০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বর্ধমানে ২২.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ডায়মন্ড হারবারে ২৩.০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, দিঘা ২০.০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, পুরুলিয়ায় ১৬.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, শ্রীনিকেতনে ২০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।