চণ্ডীগড়: অত্যধিক বৃষ্টি এবং যোগান কম হওয়ার কারণে ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে সবজির দাম। গত কয়েকদিন ধরেই এই মূল্যবৃদ্ধি চোখে পড়ছে দেশের বিভিন্ন জায়গায়। তবে এবার মাত্রা ছাড়িয়ে যাচ্ছে।
পঞ্জাব এবং হরিয়ানার মত রাজ্যে পেঁয়াজ এবং আলুর দাম গিয়ে ঠেকেছে প্রায় দ্বিগুনে।

শুধু তাই নয় একইসঙ্গে পেঁয়াজ,ফুলকপি, বিন এই সকল সবজি ও দাম গিয়ে ঠেকেছে আকাশে। কেবল মাত্র পঞ্জাব ও হরিয়ানাই নয়, পাশের রাজ্য হিমাচল প্রদেশের অবস্থাও এক বলে জানাচ্ছেন সেখানকার বিক্রেতারা। এই দুই রাজ্য এবং এদের যৌথ রাজধানী চণ্ডীগড়ে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়।

মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে সবজিপত্রের দাম এতটা বেড়ে যাওয়াতে স্বভাবতই অবাক সেখানকার বিক্রেতারা। এক সপ্তাহ আগে যেখানে এই সকল আনাজপত্র বিক্রি হত ২০-২৫ টাকায়। সেখান থেকে এতটা বেড়ে যাওয়ায় মাথায় হাত পড়েছে সাধারণ মানুষের। পেঁয়াজের মূল যে জায়গা অর্থাৎ মহারাষ্ট্র এবং উত্তরের রাজ্য থেকে আমদানি করা হয়, সেই সকল জায়গা থেকে আমদানির হার কমে যাওয়াতে প্রভাব এতটা চড়া হারে পড়ছে বলে জানাচ্ছেন সেখানকার বিক্রেতারা।

পাঞ্জাবে একাংশ এবং হরিয়ানায় প্রবল বণ্যা হওয়ার দরুন প্রচুর পরিমানে সবজি নষ্ট হয়ে গিয়েছে আর তাঁর সঙ্গে আমদানির হার ও ব্যাপক ভাবে কমেছে। যার ফলে দাম ক্রমেই বেড়ে চলেছে। বিক্রেতারা বলছে টমেটো ৪০ থেকে ৮০ টাকা এবং পেঁয়াজ ৯০ থেকে ১২০ টাকা প্রতি কেজিতে পৌঁছেছে। বাঁধাকপি ১০০ টাকা, যা আগে ৬০-৭০ টাকা ছিল। বিনসের দাম ৫০ থেকে লাফিয়ে দাঁড়িয়েছে ৯০ টাকায়। লাউ এবং গাজরের দাম ও উর্দ্ধগামী। যার ফল ভুগতে হচ্ছে সাধারন মানুষকে।