কলকাতা- পুজোর দিনগুলিতে সেই ভাবে বৃষ্টি না ভোগালেও প্রতিমা নিরঞ্জনের দিন এবং একাদশীতেও কলকাতার মানুষকে ভোগাচ্ছে অবিরাম বৃষ্টিপাত। পুজোর সময়ে আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে বৃষ্টির কথা শোনালেও তার রেশ যে একাদশীতেও থাকবে তা ঠিক বুঝতে পারেনি বুধবারের অফিসমুখী পথযাত্রীরা। টানা দু ঘণ্টার বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত গোটা কলকাতা। ফলে একাদশীতে যাঁরা ধীরে সুস্থে কলকাতার সেরা মণ্ডপগুলির প্রতিমা দর্শন করবেন বলে ভেবেছিলেন তাঁদের সেই আশায় ফের জল ঢালল নিম্মচাপ।

এই বছর পুজোয় বৃষ্টি হওয়ার কথা অনেক আগেই শুনিয়ে রেখেছিল আবহাওয়া অফিস। আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস মতো পুজোর দিনগুলিতে কলকাতা এবং শহরতলিতে মুষলধারায় বৃষ্টিপাত হয়নি। কিন্তু অষ্টমী এবং নবমীতে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাতের ফলে কিছুটা ভোগান্তি হয়েছিল বাঙালির প্যান্ডেল হপিং-এ।

কিন্তু পুজো কেটে গেলেও একাদশী থেকে আবার বৃষ্টিতে ভিজতে হবে শহরবাসীকে তা আঁচ করতে পারেননি অনেকেই। ফলে স্বাভাবিক ভাবে সকাল থেকে জল ঠেলে গন্তব্যে পৌঁছাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এদিকে বুধবার সকাল থেকে টানা অঝোর বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে কলকাতার জনজীবন।

সকাল থেকে বিরামহীন বৃষ্টিপাত হওয়ায় জল জমে গিয়েছে উত্তর-দক্ষিণ-সহ কলকাতার একাধিক রাস্তায়। এমনিতেও বাঙালির এখনও ছুটির মেজাজ কাটেনি আর যাঁদের কেটেছে তাঁরা সক্কাল সক্কাল অফিসে বেরিয়ে যে বিপত্তির মুখে পড়েছেন। একে অসুরবৃষ্টি, তার উপর বুধবার একাদশীতে শহরের বিভিন্ন জায়াগায় চলছে প্রতিমা নিরঞ্জনের প্রস্তুতি। কিন্তু সকাল থেকে বৃষ্টি হওয়ায় প্রতিমা নিরঞ্জনের ক্ষেত্রে অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে পুজো উদ্যোক্তাদের। জানা গিয়েছে সল্টলেক থেকে শুরু করে ধর্মতলা, যাদবপুর, ঠনঠনিয়া এবং মুক্তারাম স্ট্রিট জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। একই অবস্থা শহরের অন্যান্য রাস্তারও। জলে ডুবে কলেজ স্ট্রিটও। ফলে টানা বৃষ্টির জমা জলে সকাল থেকেই শহরের যান চলাচলের গতি শ্লথ হয়ে পড়েছে। একে মুষলধারা বৃষ্টি তার উপর জমা জল সব মিলিয়ে সকাল থেকেই দুর্ভোগ শহরবাসীর।

এদিকে টানা বৃষ্টিতে রেহাই নেই জেলাগুলিতেও। সকাল থেকেই পাওয়া যাচ্ছে জেলায় জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ভারী বৃষ্টিপাতের খবর। দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলা জুড়ে অব্যাহত রয়েছে বৃষ্টি। এদিকে সকাল থেকে টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন হয়ে পড়েছে পূর্ব-মেদিনীপুর জেলার কাঁথি হাসপাতাল। বুধবার সকাল থেকে টানা বৃষ্টির জেরে জলমগ্ন হয়ে পড়ে এই হাসপাতালে প্রবেশের সামনের রাস্তা। শুধু পূর্ব মেদিনীপুর নয়, একই চিত্র দেখা গিয়েছে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনাতেও। এদিকে সকাল থেকে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়েছে নদিয়া জেলাতেও। সব মিলিয়ে পুজো শেষ হয়ে গেলেও এই রাজ্য থেকে এখনও বর্ষা বিদায় নেওয়ার বালাই নেই।