ফাইল ছবি

কলকাতাঃ  স্বস্তির খবর শোনাল হাওয়া অফিস। আগামী কয়েক ঘন্টায় ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস দিল হাওয়া অফিস। পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, বর্ধমান, বীরভূম, উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণার বিস্তির্ন এলাকায় ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে কলকাতা, হাওড়া, হুগলিতেও।

যদিও ইতিমধ্যে হাওড়াতে ব্যাপক ঝড় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলাতে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। সাময়িক স্বস্তি মিললেও আজ বুধবার সকাল থেকে অস্বস্তিকর গরম। রাস্তায় বের হওয়াটাই যেন যন্ত্রণার ছিল। কার্যত গলদঘর্ম অবস্থা ছিল। কিন্তু অবশেষে স্বস্তির পূর্বাভাস দিল আলিপুর হাওয়া অফিস।

আলিপুর হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, আগামী কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ঝড় বৃষ্টি শুরু হবে। ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বইবে বলেও পূর্বাভাসে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, ইতিমধ্যে উত্তরবঙ্গে বর্ষা ঢুকে পড়েছে। সেখানে বৃষ্টিও শুরু হয়েছে। কিন্তু দক্ষিণবঙ্গে পাকাপাকিভাবে কবে বর্ষা আসবে তা নিয়ে বেশ চিন্তিত হয়ে পড়েছিলেন সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে রাস্তায় বেরিয়ে যেভাবে গরমে পুড়তে হচ্ছে তাতে চাতকের মতো অবস্থা হয়েছিল সাধারণ মানুষের।

তবে আলিপুর হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, দক্ষিণবঙ্গে প্রাক বর্ষা শুরু হয়ে গিয়েছে। তবে পাকাপাকিভাবে বর্ষা শুরু হতে চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে। আবার বিহারের দক্ষিণভাগ হয়ে, ঝাড়খণ্ড, এবং পশ্চিমবঙ্গ ও বঙ্গোপসাগরের ওপর নিম্নচাপের সৃষ্টি হয়েছে। তার হাত ধরেই বর্ষা দক্ষিণবঙ্গে আসে না কি আরও অন্য কোনও সিস্টেমের হাত ধরে বর্ষার বৃষ্টি আসবে দক্ষিণবঙ্গে এখন সেদিকেই তাকিয়ে হাওয়া অফিস।

টানা প্রায় এক মাস ধরে সর্বোচ্চ আর্দ্রতা ৯০ এর উপরে রয়েছে। সেটাই আজ বুধবারও কলকাতাকে ভুগিয়েছে।

আর্দ্রতা মাত্রার দিকে দেখলে তা আরও স্পষ্ট হবে। কাল যে বৃষ্টি হয়েছে তাতে কলকাতার আর্দ্রতা কমেনি, উল্টে আরও এক ধাপ বেড়েছে। সকালের তাপমাত্রা মঙ্গলবারের তুলনায় কমেছে কিন্তু আর্দ্রতা বেশি থাকায় অস্বস্তি যে জারি থাকবে তার প্রমান মিলছে। বুধবার শহরের সর্বোচ্চ আর্দ্রতার পরিমাণ ৯৬ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৬৮ শতাংশ। মঙ্গলবার তা ছিল সর্বোচ্চ ৯৫ সর্বনিম্ন ৬৭ শতাংশ। মঙ্গলবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিকের থেকে যা দুই ডিগ্রি বেশি। আজ তা হয়েছে ২৬.৪, যা স্বাভাবিক।