তিরুঅনন্তপুরম: কোথাও দশ ফুট, কোথাও বারো ফুট সমান জল৷ কেরলে একতলা সমান বাড়ি জলের তলায়৷ বন্যার জলে ভেসে গিয়েছে সব কিছু৷ সম্বল শুধু জীবনটুকুই৷ কিন্তু প্রবল বন্যায় স্কুল সার্টিফিটেক হারিয়ে যাওয়ায় সেই জীবনটাই শেষ করে দিল এক কিশোর৷

আরও পড়ুন: কেরলের বন্যাদুর্গতদের সাহায্যে কাঁথির কোঅপরেটিভ ব্যাংক

পুলিশ জানিয়েছে, কোঝিকড় জেলার করনথুরের বাসিন্দা ১৯ বছরের কৈলাস৷ দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার পর ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে ভরতি হয় সে৷ নতুন ইউনিফর্ম কেনে৷ এছাড়া বেশ কিছু টাকা আলাদা করে সরিয়ে রাখে৷ তিন দিন আগে পরিবারের সঙ্গে ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নেয়৷ বন্যা পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হওয়ায় রবিবার বাড়ি ফিরে আসে৷ কিন্তু বাড়ি ফিরে দেখে দুটি স্কুল সার্টিফিকেট জলে ভিজে নষ্ট হয়ে গিয়েছে৷ এরপরই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে৷

আরও পড়ুন: আগামী ১০ বছরে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হবে বন্যায়

ছেলের মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছে বাবা-মা৷ কাঁদতে কাদতে কৈলাসের বাবা জানান, ‘‘জল নেমে যাওয়ায় রবিবার বেলার দিকে বাড়ি ফিরে আসি৷ ঘরে এসে ঝুলন্ত অবস্থায় ছেলেকে খুঁজে পাই৷’’ বন্যার জলে তাদেরও সব কিছু হারিয়ে গিয়েছে৷ ঘরে যা যা ছিল সব কেড়ে নিয়েছে প্লাবনের জল৷ তাই পরিবারের সকলের আশা বেঁচে একমাত্র ছেলেকে ঘিরে৷ এখন সেটাও চলে গিয়েছে৷