প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: করোনা মোকাবিলায় দেশজুড়ে চলা লকডাউন ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কৌশলের ফল মিলেছে হাতেনাতে৷ অন্যান্য দেশের নিরিখে ভারতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ অনেক কম বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক৷ করোনা মোকাবিলায় তড়িঘড়ি নেওয়া লকডাউনের সিদ্ধান্তের জেরেই ব্যাপক হারে সংক্রমণ এড়ানো গিয়েছে বলে মত স্বাস্থ্যমন্ত্রকের৷

দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনার পর কেন্দ্রের মতে, ভারতের থেকে জনসংখ্যা কম এমন দেশগুলিতে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা যে হারে বাড়ছে, ভারতে তার থেকে সংখ্যা অনেক কম৷ বিশ্বের গড় ধরলে দেখা যাবে, একটি লোকের থেকে ১০০ জন আক্রান্ত হচ্ছেন৷ সেই নিরিখে ভারতের ছবিটা ভিন্ন৷

তবে করোনা মোকাবিলায় আত্মতুষ্টির কোনও কারণ নেই বলেই মত কেন্দ্রীয় সরকারের৷ কেন্দ্রের মতে, এখনো বেশ কিছু মানু্ষের গা–ছাড়া মনোভাব রোগটিকে যখন তখন ছড়িয়ে দিতে পারে৷

এমইস ও এনআইএইচএএনএস, কেন্দ্রীয় সরকার এই কারণেই আরও তৎপরতার সঙ্গে করোনা মোকাবিলায় ব্যবস্থা নিচ্ছে৷ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা একেবারে শূন্যে পৌঁছানোর আগে পর্যন্ত সাধারণ মানুষকে সরকার নির্দেশিত সব আইন মেনে চলতে বলা হচ্ছে৷

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, সামান্য ভুলেও বিপদ আরো ভয়ঙ্কর হতে পারে৷ সামান্য ভুলে দেশে ১০০ করোনাভাইরাস আক্রান্তের থেকে ১০০০ আক্রান্তের সংখ্যায় পৌঁছতে ১২ দিন সময় লাগবে৷

মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৪১৭ জন৷ কিন্তু রাতে এই সংখ্যাটা এক লাফে অনেকটাই বেড়ে যায়৷ দিল্লির নিজামউদ্দিনে জমায়েতের ফলেই গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৮০ জনের জনের শরীরে এই মারণ ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে৷ এই মুহূর্তে দেশের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৬১১৷ মৃত বেড়ে ৪৭৷