শরীরকে সুস্থ রাখতে প্রয়োজন সুষম খাদ্যাভাসের। সুষম খাবার খেলে বিভিন্ন দিক থেকে আমাদের শরীর সম্বৃদ্ধ হয়। কিন্তু ক্রমে ব্যস্ত হয়ে চলা এই জীবনে খাদ্যাভ্যাস সবসময় ব্যালেন্স করা হয়ে ওঠে না, ক্ষুধা নিবারণে ” যা পাই তা খাই” গোছের মনোভাব নিয়ে চলতে হয়। যার ফলে শরীর বঞ্চিত হয় প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ থেকে। নিয়মিত ডিম খেলে খেলে কিন্তু আমাদের শরীরে কিন্তু প্রোটিন ও ভিটামিনের ঘাটতি সাধারণত হয় না। এক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো যারা পেটের সমস্যায় ভোগেন তারা নিয়মিত ডিম খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে ভুলবেন না। কর্মক্ষেত্রে বা বাড়িতে ডিম খুব সহজলভ্য এবং দামেও কম। আসুন দেখেনি ডিম থেকে শারীরিক ভাবে সম্বৃদ্ধ হওয়ার উপায়

১. ডিমে ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি, ভিটামিন বি৫, ভিটামিন বি১২, ফসফরাস, সেলেনিয়াম, ক্যালসিয়াম ইত্যাদি প্রচুর পরিমাণে থাকে। যা শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী।

২. ডিমে ভালো কোলেস্টরলের পরিমাণ বেশি যা আমাদের দেহের খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। যার ফলে হৃদরোগের সম্ভাবনা কমে। এছাড়াও ডিমে উপস্থিত ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড হার্ট এ্যাটাকের সম্ভাবনা কমায়।

৩. আমাদের শারীরিক গঠনে প্রোটিনের ভূমিকা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। ডিমে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন ও অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে যা শরীর গঠনে উপকারী

৪. নিয়মিত ডিম খেলে স্ট্রোকের সম্ভাবনা কমে। ডিমে উপস্থিত ভাল কোলেস্টেরল স্ট্রোকের সম্ভাবনা কমিয়ে সরিরকে সুস্থ রাখে।

৫. ডিম ওজন কমাতে সাহায্য করে। ডিম একটি হাই প্রোটিন খাদ্য যা দেহের ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে। ওজন কমানোর সহজ উপায় হল প্রতিদিন কম ক্যালরি যুক্ত খাবার খাওয়া। একটা বড় ডিমে মাত্র ৭৮ ক্যালরি থাকে। এছাড়াও দিম শরীরের মেটাবোলিজম বৃদ্ধিতে সাহায্য করে, যার ফলে ওজন কমে।

সবশেষে একটা কথা মনে রাখা ভালো যে ডিম খাওয়ার ক্ষেত্রে তেল, মাখন ইত্যাদি তৈল জাতীয় পদার্থ যত কম ব্যবহার করা যায় ততই ভালো।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.