কলকাতা: সিএবি’র বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। ঘটনাচক্রে পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে ক্রমানুসারে চার নম্বরে বসেছিলেন পাঁচদিনের ক্রিকেটে বিরাট কোহলির ডেপুটি। আর নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে এদিন তাঁর বক্তব্যের শুরুতে সেই সূত্র ধরে আজিঙ্কা রাহানে মনে করিয়ে দেন, ‘এখানে আমার নম্বর যেমন চার, ঠিক তেমনই ব্যাটিং অর্ডারেও চার নম্বর জায়গাটা আমার সবচেয়ে প্রিয়।’

ইদানিং সময়ে ভারতীয় সময়ে সবচেয়ে চর্চিত ব্যাটিং অর্ডারে চার নম্বর জায়গা নিয়ে এখনও চূড়ান্ত নয় কিছুই। বিজয় শংকর থেকে ঋষভ পন্ত, সদ্য-সমাপ্ত বিশ্বকাপে চার নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলানো হয়েছে একাধিক ক্রিকেটারকে, কিন্তু বেরোয়নি কোনও সমাধান-সূত্র। তাই পাঁচদিনের ক্রিকেটের পাশাপাশি সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটেও বহু চর্চিত চার নম্বরে সমাধান হিসেবে এখনও ভাবা যেতে পারে তাঁর নাম। কলকাতায় এসে ইঙ্গিত দিলেন রাহানে।

ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে আসন্ন টেস্ট সিরিজে প্রশ্নাতীতভাবে ফেভারিট হিসেবে শুরু করবে কোহলি নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দল। কিন্তু রাহানের মতে আয়োজক হিসেবে ঘরের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভয়ঙ্কর এবং ওদেরকে অবশ্যই সমীহ করতে হবে। এপ্রসঙ্গে রাহানে জানান, ‘আমরা সবাই জানি বিশ্বক্রিকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভয়ঙ্কর এবং একইসঙ্গে অনিশ্চিত একটা দল। তবে সিরিজটা খেলতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি।’ বেশ কয়েকমাস বিশ্রামের পর আগামী ২২ অগাস্ট ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কামব্যাক করবেন রাহানে।

আসন্ন ক্যারিবিয়ান সফরে নিজের সেরাটা তিনি উজাড় করে দেবেন, জানালেন রাহানে। পাশাপাশি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়েও বেশ কিছু কথাও উঠে এল রাহানের আলোচনায়। টেস্ট ক্রিকেটে ভারতীয় দলের সহ-অধিনায়ক জানালেন, ‘টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ এমন একটা বিষয় যার দিকে আমরা প্রত্যেকে তাকিয়ে ছিলাম। প্রত্যেকটা টেস্ট সেইসঙ্গে প্রত্যেকটি টেস্ট সিরিজ এখন থেকে স্পেশ্যাল। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হল, এখানে রোজ তোমাকে তোমার রুটিন ফলো করতে হবে। আমি ভীষণই উত্তেজিত।’

বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি সিএবি’র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মঞ্চে রাহানের স্মৃতিচারনায় উঠে এল ইডেন গার্ডেন্সও। পশ্চিমাঞ্চলের হয়ে অনুর্ধ্ব-১৪ দলের হয়ে ইডেনে প্রথম বড় ম্যাচ খেলার স্মৃতি ভিড় করে এল রাহানের স্মৃতির সরণি বেয়ে। এবছর সিএবি’র লাইভটাইম অ্যাচিভমেন্ট সম্মানে সম্মানিত হলেন অরুণ লাল। দিল্লির ছেলে হয়েও ১৯৮৯-৯০ মরশুমে বাংলার রঞ্জি জয়ী দলের সদস্য অরুণ লালের অভিজ্ঞতা মঞ্চেই মনোযোগ সহকারে শুনলেন রাহানে। তবে রাহানের কথায় ভারতীয় ক্রিকেটে বাংলার সবচেয়ে বড় রোল মডেল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সভাপতি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়কও।

টেস্ট সহ-অধিনায়কের কথায়, ‘পঙ্কজ রায় থেকে ঝুলন গোস্বামী। বাংলা ভারতীয় ক্রিকেটে একাধিক মহান ক্রিকেটারের জন্ম দিয়েছে। তবে সবচেয়ে বড় রল মডেল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আমাদের মধ্যেই বসে রয়েছেন। ভারতীয় ক্রিকেটে আমুল পরিবর্তন এনেছেন তিনিই। আমরা প্রত্যেকেই তাঁকে অনুসরন করে বড় হয়েছি। উনি সত্যিই অনুপ্রেরণা।’