নয়াদিল্লি: ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটার-এর মতো সোশ্যাল মিডিয়ায় আধার লিঙ্ক করতে হবে কিনা তা নিয়ে সোমবার বিশেষ বার্তা দিল দিল্লি হাই কোর্ট। বিশেষ বেঞ্চের তরফে সোশ্যাল মিডিয়ার সঙ্গে আধার বা প্যান লিঙ্কিং -এর প্রস্তাব নাকচ করে দেওয়া হয়।

হাইকোর্টের তরফে বলা হয়, ভুয়ো অ্যাকাউন্টগুলি বাতিল করার জন্য আধার-প্যান লিঙ্কিংয়ের যে প্রস্তাব এসেছে তাতে অনুমতি দেওয়া হলে, যে আসল আক্যাউন্টগুলি রয়েছে তাঁদের মালিকদের নানান তথ্যও ‘অকারণে’ বিদেশী হাতে চলে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি ডিএন প্যাটেল এবং বিচারপতি সি হরি শঙ্করের একটি বেঞ্চ বলে যে, টুইটার, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ-এর মতো সোশ্যাল মিডিয়াগুলির সঙ্গে আধার, প্যান বা অন্যান্য যে কোনও ডকুমেন্ট যোগ করতে হলে বর্তমান আইনগুলিতে বদল আনা দরকার। আর তা আদালত করতে পারবে না।

উল্লেখ্য এবছরের অগস্ট মাসে মাদ্রাজ হাইকোর্টের তরফেও সোশ্যাল মিডিয়ার সঙ্গে আধার লিঙ্কিংয়ের প্রস্তাব নাকচ করে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য বিজেপি নেতা অশ্বিনী কুমার উপাধ্যায় আবেদন করেছিলেন সোশ্যাল সাইটে ২০ শতাংশ অ্যাকাউন্টই ফেক, নকল অথবা ভুয়ো। হিয়ারিংয়ের সময় অশ্বিনী কুমারবাবু বলেন, যে কেউই এখন চাইলে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা ফেক অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারে। এমনকি বিচারপতিদের নামেও ফেক অ্যাকাউন্ট তৈরি করা হতে পারে বলে জানান তিনি। তাই কিছু একটা করা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

উপাধ্যায় জানান, এই ফেক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমেই নানান বিতর্কিত মন্তব্য তুলে ধরা হয়। পাশাপাশি তিনি অভিযোগ করেন, এই ফেক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমেই ভোটের সময় পেইড নিউজ ও ভুয়ো খবর ছড়ানো হয়।