ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: কুকুর ভালবাসেন, বাড়িতে পোষেন? তাহলে একটা ছোট্ট দুসংবাদ রয়েছে আপনার জন্য। কুকুর পুষলে এবার থেকে আপনাকে দিতে হতে পারে ৫০০০ টাকা। শুধু তাই নয়, যদি কুকুর পোষার ইচ্ছা থাকে, তাহলেও আপনার প্রিয় পোষ্যটিকে নিয়ে আসতে গেলে আপনাকে দিতে হবে সেই ৫০০০ টাকা। অবাক হচ্ছেন? কিন্তু বাস্তব এটাই।

আপনি যদি উত্তরপ্রদেশের গাজিয়াবাদের বাসিন্দা হন, তবে খুব তাড়াতাড়ি আপনার ওপর লাগু হতে চলেছে এই নিয়ম। কুকুর পুষলে তার রেজিস্ট্রেশন ফি বাবদ পোষ্যর মালিককে দিতে হবে ৫০০০ টাকা, এমনই নির্দেশিকা জারি করতে চলেছে গাজিয়াবাদ মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন। শুক্রবারই এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রেজিস্ট্রেশন ফি ছাড়াও লাগু হতে পারে আরও এক নির্দেশিকা। বলা হয়েছে বাড়ির পোষা কুকুরকে অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় রাখলে, বা অযত্ন করলে ৫০০ টাকা ফাইন করা হবে বাড়ির মালিকের। সেক্ষেত্রে প্রতিদিন নজরদারি চালাবে গাজিয়াবাদ মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশেন বিশেষ টিম।

শুক্রবার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও সংশ্লিষ্ট নিয়ম জারি করতে ইতিমধ্যেই কাউন্সিলরদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রতি বছর পোষ্যের মালিকদের মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনকে ৫০০০ টাকা হারে ফি দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন অর্ধেকের বেশি কাউন্সিলর। এছাড়াও রাস্তার ধারে বা প্রকাশ্যে কুকুরদের মলমূত্র ত্যাগ করানো হলে অপরিচ্ছন্নতার জন্য ৫০০ টাকা ফাইনের কথাও বলেছেন অনেক কাউন্সিলর।

গাজিয়াবাদ মিউনিসিপ্যা, কর্পোরেশন জানিয়েছে এই নিয়ম না মানলে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে হতে পারে পোষ্যর মালিককে। টাইমস অফ ইণ্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে তেমনই তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। তবে বাড়ির পোষ্য কুকুরদের রেজিস্ট্রেশন করানোর আগে পর্যন্ত বেশ কিছু নিয়ম মানতে হবে মালিককে। মিউনিসিপ্যালিটির সাহায্যে নিয়মিত ভ্যাকসিনেশন কার্ড আপডেট, ব্রিডিংয়ের ব্যবস্থা ও ঠিকানার আপডেট করাতে হবে বলে জানানো হয়েছে।

শুধু গাজিয়াবাদ নয়, এই নিয়ম চালু হতে চলেছে দিল্লি ও গুরুগ্রাম মিউনিসিপ্যালিটি এলাকাতেও। ইতিমধ্যেই নির্দেশিকা তৈরি হয়ে গিয়েছে। তবে সেখানে বার্ষিক রেজিস্ট্রেশন ফি ৫০০ টাকা ধার্য করা হয়েছে।