চণ্ডীগড়: অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে তাঁর বিধ্বংসী ইনিংসের পুরস্কার পেলেন হরমনপ্রীত কউর৷ বুধবারই তাঁকে ডিএসপি পদে নিয়োগ করল পঞ্জাব পুলিশ৷

২০১০–১১ সালে পঞ্জাব পুলিশের চাকরি চেয়েও প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের এই পঞ্জাব তনয়া৷ কিন্তু বুধবার মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিংয়ের সঙ্গে দেখা করেন হরমনপ্রীত৷ রাজ্যের ডিরেক্টর জেনারেল অফ পুলিশ অর্থাৎ ডিজিপি সুরেশ অরোরাকে হরমনপ্রীতের নিয়োগের ফর্ম্যালিটি শেষ করার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী৷ পাশাপাশি প্রশংসা করে হরমনপ্রীতের হাতে পাঁচ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে হরমনপ্রীতের ১৭১ রানের ব্যাটিং দাপটে খড়কুটোর মতো উড়ে গিয়েছে ছ’বারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া৷ ফাইনালে অর্ধশতরান করে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন কউর৷ রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে যদিও শেষ হাসি হাসে ইংল্যান্ড৷ এসবের পর নিজেদের ভুল শুধরে নিয়ে হরমনপ্রীতকে পঞ্জাব পুলিসে ডিএসপি পদে নিয়োগ করল রাজ্য সরকার৷

বর্তমানে পশ্চিম রেলওয়েজের হয়ে ক্রিকেট খেলেন বছর আঠাশের ডান হাতি ব্যাটসম্যান। পশ্চিম রেলওয়েজের মুম্বই শাখায় চিফ সুপারইনটেনডেন্ট পদে রয়েছেন হরমনপ্রীত৷ পুলিশের চাকরিতে যোগ দিতে হলে সেক্ষেত্রে রেলের চাকরিকে বিদায় জানাতে হবে৷ ভারত যখন লর্ডসে বিশ্বকাপ ফাইনালে ‘ইংরজে বধ’-এর জন্য লড়াই করছে তখনই হরমনপ্রীতের জন্য ৫ লক্ষ টাকার পুরস্কার ঘোষণা করেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী৷ এই বার্তা হরমনপ্রীতের বাবাকে দেওয়া হয়৷

সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ১৭১ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলে প্রচারের আলোয় আসেন হরমনপ্রীত৷ ভারতকে বিশ্বকাপ ফাইনালে তোলার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা নেন হরমনপ্রীত৷ ১১৫ বলের ইনিংসে ২০টি বাউন্ডারি ও ৭টি ছক্কা মেরে অস্ট্রেলিয়ার বোলাদের তুলধোনা করেন পঞ্জাব কন্যা৷ ২০০৫-এর পর তাঁর ব্যাটেই ভর করেই বিশ্বকাপ ফাইনালে ওঠে ভারত৷