স্টাফ রিপোর্টার, পুরুলিয়া: বিজেপি কর্মী খুনের ঘটনায় সিবিআই হস্তক্ষেপ চেয়ে এবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হরিরাম মাহাতো৷ চলতি সপ্তাহে এই মামলার শুনানির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷

সূত্রের খবর, ২০১৮ সালেরও ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনে পুরুলিয়া জেলা জুড়ে বিজেপির হয়ে প্রচার থেকে শুরু করে দেওয়াল লিখন ও বাড়ি বাড়ি প্রচার চালিয়ে ছিলেন বছর ১৮ ত্রিলোচন মাহাতো৷ আর এই নির্বাচনি প্রচারের মাঝে তাঁকে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরা হুমকি দেয় বলে অভিযোগ৷ পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলে বিজেপির সাফল্য নজর এড়ায়নি৷ ২৯ মে ত্রিলোচন মাহাতো বাড়ি থেকে বেরিয়ে আর ফেরেনি৷ পরের দিন সকালে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় বাড়ির পাশের জঙ্গলে পাওয়া যায় তাকে৷ তৃণমূলের বেশ কয়েকজন নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করে নিহতের বাবা৷ তবে যাদের নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে পুলিশের কাছে, এফআইআরে তাদের নাম নেই বলে জানায় হরিরাম মাহাতো৷

আরও পড়ুন: কেজরির ধর্ণায় ফের অসুস্থ মন্ত্রী

পুলিশের হাত থেকে এই তদন্তের ভার দেওয়া হয় সিআইডি-কে৷ কিন্তু এখনও পর্যন্ত কাওকে গ্রেফতার করা হয়নি বলে অভিযোগ৷ রাজ্যের পুলিশ এবং সিআইডির ওপর আস্থা হারিয়ে এবার সিবিআই তদন্তের আর্জি নিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ তিনি৷ সঠিক তদন্তের দাবি নিয়ে মামলাও দায়ের করেছেন বলে জানা গিয়েছে৷ চলতি সপ্তাহে তপোব্রত চক্রবর্তীর এজলাসে এই মামলার শুনানির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷

আরও পড়ুন: নির্জনে ইংল্যান্ড সফরের মহড়া শুরু মাহির

প্রসঙ্গত, গত মাসের শেষের দিকেই পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মীর ছেলে ত্রিলোচন মাহাতো মৃত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি তুলেছিল রাজ্য বিজেপি৷ রাজ্য থেকে বিজেপির জাতীয় সম্পাদক রাহুল এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছিলেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাহস থাকলে এই মৃত্যুর সিবিআই তদন্ত করে দেখান। সব ফাঁস হয়ে যাবে।” রাহুলের মতে, “এক সময় ত্রিপুরাতে মধু দেবকে এই ভাবেই হত্যা করেছিল সিপিএম। মানুষ সিপিএমকে ত্রিপুরা থেকে সাফ করে দিয়েছে। বাংলায় তৃণমূলেরও একই অবস্থা হবে।”

আরও পড়ুন: খেলনার পিস্তল ভেবে মাকে গুলি, এলাকায় চাঞ্চল্য