হায়দরাবাদ: বেপরোয়া ড্রাইভিং কেড়ে নিল আরও এক অভিনেতার জীবন। আজ বুধবার কাল ছ’টা নাগাদ হায়দরাবাদ থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে নালগোন্ডা এলাকায় ভয়াবহ এক গাড়ি দূরঘটনা ঘটে। তাতেই প্রাণ হারায় তেলুগু অভিনেতা নন্দমুরি হরিকৃষ্ণ।

পুলিসি সূত্রে জানা গিয়েছে, নন্দমুরি হরিকৃষ্ণ নেল্লোরে একটি বিয়ে বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তিনি গাড়ি চালাচ্ছিলেন তিনি। আচমকা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ডিভাইডারে ধাক্কা মেরে উলটে যায় গাড়িটি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় স্থানীয়রাই অভিনেতাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানেই মৃত্যু হয় অভিনেতার। এই খরবে গোটা দক্ষিনে ছেয়েছে শোকের ছায়া। একের পর এক ট্যুইটে শোকস্তব্ধ ট্যুইটার।

ছবি: ট্যুইটারের সৌজন্যে

ছয়ের দশকে তেলুগু সিনেমার অন্যতম জনপ্রিয় শিশুশিল্পী ছিলেন নন্দমুরি। তারপর একের পর এক ছবি তিনি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের। ২০০২ সালে মুক্তি প্রাপ্ত ‘লাহিড়ি লাহিড়ি লাহিড়িলো’ তাঁর সবথেকে জনপ্রিয় সিনেমা। এই সিনেমার জন্য তিনি সমালোচলদের প্রশংসা পান। সঙ্গে সেবছর সেরা অভিনেতার সম্মানও পান। তবে একটা সময় তিনি অভিনয় ছেড়ে দিয়েছিলেন। যদিও পরে আবার লাইট-ক্যামেরার মায়ায় ফিরে এসেছিলেন গ্ল্যামারের দুনিয়ায়।

আরও পড়ুন: প্রতারণার অভিযোগে হৃত্বিকের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হল থানায়

নন্দমুরি হরিকৃষ্ণ শুধু একজন অভিনেতা নন। তিনি একসময় অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। বর্তমানে তেলুগু দেশম পার্টির নেতা। তবে এসব ছাড়িয়ে তিনি ছিলেন তেলুগু কিংবদন্তি এন টি রামা রাওয়ের পুত্র। নন্দমুরির তাঁর গোটা জীবনটাই বাবার আদর্শে চলেছেন। অভিনয়ের পাশাপাশি রাজনীতির ময়দানেও বাবার মতো জমিয় রেখেছিলেন নিজের অস্তিত্ব।

বাবা মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন পরিবহন মন্ত্রী হন তিনি। তেলুগু দেশম পার্টির তরফ থেকে রাজ্যসভার সাংসদ হিসেবে তাঁর নাম মনোনীত করা হয়েছিল। তিনি এতটাই পার্টিকে ভালবাসতেন যে,  এনটিআর-এর প্রয়াণের পরও দলে নিজের জনপ্রিয়তা বজায় রেখেছিলেন।