স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: যুগ যুগ ধরে ভগবানের পূজা ও তাঁকে তুষ্ট করেই বিভিন্ন অশুভ শক্তি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ভগবানের দারস্থ হয়েছেন মানুষজন। এযুগেও ঘোর বিপদের দিনে ভবানের শরণাপন্ন হয়েছে মানুষজন। তাই বিশ্বত্রাস করোনা মহামারি থেকে মুক্তি পেতে ১৫ দিন ধরে হোম, যজ্ঞ,ও নাম সংকীর্ত্তন এর আয়োজন করল পূর্ব মেদিনীপুরের সুতাহাটার হোড়খালীর গোলাপচকের বাসিন্দারা।

করোনা আতঙ্কে তটস্থ মানুষজন। লকডাউনের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন অসংখ্য মানুষ। এই ভয়াবহ পরিস্থিতি কবে মুক্ত হবে তার কোনও নিশ্চয়তা নেই এখনও পর্যন্ত। তাই হোড়খালীর গোলাপচকের বাসিন্দারা ১৫ দিন ধরে নাম সংকীর্তনের ব্যবস্থা করেছেন।

এই ১৫ দিনের শেষ দিন সোমবার অর্থাৎ রাখী পূর্ণিমার দিন এলাকাবাসীদের উপস্থিতিতে সারাদিন ধরে নাম সংকীর্ত্তন,কয়েক মণ কাঠ পুড়িয়ে হোম,ও পূজার্চনা করা হয়। এলাকাবাসীদের বিশ্বাস এতে করোনা মহামারি থেকে মুক্ত হবে মানুষজন। তেমনি যারা করোনা আক্রান্ত তাঁরাও দ্রুত সুস্থ হবে।

ফিরবে আগের মত স্বাভাবিক ছন্দ। এবং যারা মারা গেছে তাদের আত্মার শান্তি হবে এই নাম সংকীর্ত্তন যজ্ঞ এর মাধ্যমে।

জানা গিয়েছে, এলাকার একজন ব্যক্তি নিজে দায়িত্ব নিয়ে সাধারণ মানুষদের থেকে চাঁদা তুলে ১৫ দিন ধরে নাম সংকীর্তনের বন্দনা করেছেন। কারন, মানুষজন এখন দুঃখ্যের মধ্যে রয়েছে। এই নাম সংকীর্ত্তন এর জন্য ওরা একটু ভাল থাকবে। ফিরে আসবে আগের সেই হাঁসি।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও