মুম্বই: কোভিড সংক্রমণের কারণে চতুর্দশ সংস্করণের আইপিএল(IPL) স্থগিত হয়ে যাওয়ার পর প্রত্যেক খেলোয়াড়ই নিজের বাড়ি ফিরে গিয়েছেন, সময় কাটাচ্ছেন পরিবারের সঙ্গে। ভারতীয় দল ও মুম্বই ইন্ডিয়ান্স দলের তারকা অল-রাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়াও(Hardik Pandya) এর ব্যতিক্রম নন। ভারতীয় দলের ব্যস্ত শিডিউলের কারণে এমনিতেই ক্রিকেটারেরা পরিবারের সঙ্গে বেশি সময় কাটাতে পারেন না, তাই এই কিছুদিনের ছুটিতে হার্দিক চুটিয়ে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটিয়ে নিচ্ছেন। নিশ্চিত করছেন এই সময়ে যেন পুরো পরিবারের সঙ্গে পুত্র অগস্থ্যের আস্তে আস্তে বেড়ে ওঠার মজা তিনি উপভোগ করতে পারেন । সম্প্রতি হার্দিক নিজের ইন্সটাগ্রামে পুত্র অগস্থ্যের সঙ্গে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন। যেখানে ছোট্ট অগস্থ্যকে বাবার হাত ধরে প্রথম বারের জন্য হাঁটতে দেখা যাচ্ছে।

‘হে বেবি’ ছবির গান সহযোগে আপলোড করা ভিডিওটিতে একটি হৃদয়ের ইমোজি ক্যাপশনে লিখেছেন হার্দিক এবং তিনি ভিডিওটি শেয়ার করার সঙ্গে সঙ্গেই তা ক্রিকেট, বলিউড জগতের তারকা থেকে শুরু করে নেটাগরিক সবার মন জয় করে নিয়েছে। তাঁর জাতীয় দলের সতীর্থ কে এল রাহুল(KL Rahul) কমেন্টে একটি হৃদয়ের ইমোজি লিখে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করেন, তাঁর সহধর্মিণী নাতাশাও হৃদয়ের ইমোজি দিয়ে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন। এছাড়াও হার্দিকের সতীর্থ কুলদীপ যাদব, মহেন্দ্র সিং ধোনির সহধর্মিণী সাক্ষী, বিরাটের সহধর্মিণী বলিউড অভিনেত্রী অনুষ্কা, অভিনেতা সুনীল শেট্টি সকলেই ভিডিওর কমেন্টে হৃদয়ের ইমোজি দিয়ে নিজেদের অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন।

গত বছর জুলাইয়ে অগস্থ্যের জন্ম হয়। কিন্তু তিনি গত বছর পুত্রের সঙ্গে বেশি সময় কাটাতে পারেননি। ত্রয়োদশ সংস্করণের আইপিএলের জন্য তাঁকে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে উড়ে যেতে হয়েছিল। তারপর তিনি ভারতীয় দলের সাথে অস্ট্রেলিয়া যান সাদা বলের সিরিজের জন্য। সেই সিরিজ সমাপ্ত হওয়ার পর হার্দিক বাড়ি ফিরে পুত্রের সঙ্গে বেশ অনেকটা সময় কাটিয়েছিলেন। এরপর ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ ও চতুর্দশ আইপিএলের সময়ও নাতাশা ও অগস্থ্য তাঁর সঙ্গে থাকায় তখনও হার্দিক তাঁদের সঙ্গে সময় কাটাতে পেরেছিলেন।

হার্দিকের নাম ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনাল ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজের জন্য ঘোষিত দলে নেই। তাঁকে আবার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সীমিত ওভারের সিরিজে খেলতে দেখা যাবে। সংবাদসংস্থা পিটিআইয়ের রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতীয় এ দলের অধিনায়কত্বের অভিজ্ঞতা থাকা হার্দিককে দ্বীপরাষ্ট্রে দেশের অধিনায়কত্বও করতে দেখা যেতে পারে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.