স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: দু’টি নতুন কারখানা স্থাপনের জন্য এক্সাইড সংস্থা হলদিয়ায় আরও ৫৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে দুই নয়া শিল্প প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ভূমি পুজো করা হয়।

হলদিয়া উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও হলদিয়া বন্দর কর্তৃপক্ষ দুটি প্রকল্পের জন্য ইতিমধ্যেই জমি দিয়েছে সংস্থাকে। আমেরিকা ও জার্মানির দুই সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে এই কারখানা গড়ছে এক্সাইড।

আরও পড়ুন: এশিয়ান গেমস থেকে সরে দাঁড়ালেন ভারতীয় তারকা

এদিন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের পরিবহণ ও পরিবেশ মন্ত্রী তথা হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান শুভেন্দু অধিকারী, জেলা পরিষদের সভাধিপতি মধুরিমা মণ্ডল, হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের সিও বিভু গোয়েল, এক্সাইডের এমডি গৌতম চট্টোপাধ্যায়, হলদিয়া পুরসভার চেয়ারম্যান শ্যামল আদক-সহ অন্যরা।

সম্প্রতি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হলদিয়ায় এক্সাইড কারখানার নতুন শাখার উদ্বোধন করতে এসেছিলেন৷ সেখানে এসে তিনি হলদিয়ায় বিনিয়োগের কথা বলেছিলেন। মুখ্যমন্ত্রীর কথা রেখেই হলদিয়ায় ই-রিক্সার জন্য পূর্ব ভারতে প্রথম হলদিয়ায় বাইপোলার ব্যাটারি তৈরির কারখানা গড়ার পরিকল্পনা করছে ব্যাটারি নির্মাতা সংস্থা এক্সাইড সংস্থা। একই সঙ্গে তারা ব্যাটারি থেকে সিসা বার করে তা পুনর্ব্যবহার করার লক্ষে একটি নতুন লেড ব্যাটারি রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট গড়ছে হলদিয়ায়। এই ধরনের কারখানাও পূর্বাঞ্চলে প্রথম গড়ে উঠছে।

আরও পড়ুন: ‘প্রতি ছ’ঘন্টায় একটি করে ধর্ষণ, কোন পথে যাচ্ছে দেশ? ‘

এক্সাইডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও গৌতম চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, হলদিয়া বন্দর কর্তৃপক্ষ এক্সাইডকে ২০ একর জমি দিয়েছে। সেখানে এক্সাইড প্ল্যান্টের সম্প্রসারণ ঘটিয়ে নতুন ধরনের ব্যাটারি তৈরি করা হবে। এছাড়া হলদিয়া উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আরও ২০ একর জমি দিয়েছে লেড ব্যাটারি রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট তৈরির জন্য। চলতি আর্থিক বছরে এক্সাইড যে ১১০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে৷ তার অধিকাংশই হলদিয়ায় বিনিয়োগ করা হবে। ১১০০ কোটি টাকার মধ্যে হলদিয়ায় বিনিয়োগ করা হবে ৫৫০ কোটি টাকা।

এক্সাইড সূত্রে জানা গিয়েছে, দীর্ঘ টানাপোড়েনের পর বন্দরের কাছ থেকে দুর্গাচকে ২০ একর জমি পাওয়া গিয়েছে। এক্সাইডের বর্তমান কারখানার উলটো দিকে হলদিয়া-মেচেদা রাজ্য সড়কের পাশে পুরনো পোর্ট-বেস এলাকায় এই জমির উপর নয়া প্ল্যান্ট গড়ে উঠবে।

আরও পড়ুন: ‘প্রতি ছ’ঘন্টায় একটি করে ধর্ষণ, কোন পথে যাচ্ছে দেশ? ‘

এখানে ই-রিক্সার জন্য বাইপোলার ব্যাটারি তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে সংস্থার। বিশেষজ্ঞদের সমীক্ষা অনুযায়ী পূর্ব ভারতে ই-রিক্সার ব্যাটারির বড় বাজার রয়েছে। রোজ এই বাজারের আয়তন বাড়ছে। বর্তমানে ই-রিক্সায় ব্যবহৃত ব্যাটারির বাজারের ২৫ শতাংশ এক্সাইডের দখলে৷ তার বড় অংশই পশ্চিমবঙ্গ-সহ পূর্ব ভারতে। বর্তমানে ই-রিক্সায় লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়।

যার বাজার মূল্য ২৫ হাজার টাকার বেশি। ই-রিক্সা ব্যবহারকারীদের কাছে এর চারভাগ দামে অর্থাৎ মাত্র ৬ থেকে ৭ হাজার টাকায় ব্যাটারি দেওয়ার জন্য নতুন ধরনের বাইপোলার ব্যাটারি বাজারে আনার পরিকল্পনা করেছে এক্সাইড। এর ফলে খরচ অনেক কমবে।

আরও পড়ুন: বিশ্বের সেরা ১০ ম্যাজিক ট্রিকস শিখে নিন, দেখুন ভিডিও

এছাড়াও দুর্গাচক থেকে তিন কিলোমিটার দূরে লেড রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট গড়ার জন্য এইচপিএল লিঙ্ক রোডের পাশে ধানসিড়ি পেট্রকেম সংলগ্ন এলাকায় হলদিয়া উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ২০ একর জমি দিয়েছে। অত্যাধুনিক জার্মান প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই কারখানা গড়ে তোলা হবে।

বেঙ্গালুরু এবং পুনেতে এই ধরনের কারখানা থাকলেও এতদিন পূর্ব ভারতে কোন লেড রিসাইক্লিং কারখানা ছিল না। এক্সাইড যে স্টোরেজ ব্যাটারি তৈরি করে তার মধ্যে প্রধান উপাদান হল সিসা ও সিসার বিভিন্ন সংকর ধাতু। সংস্থার যে লেড প্রয়োজন হয় তার ৩০ শতাংশ বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। বাকি অংশ রিসাইক্লিং থেকেই আসে।

আরও পড়ুন: অসাধারণ! একেবারে অল্প দামে ‘মিনি-কার’ আনছে এই সংস্থা

এই কারখানা হলদিয়ায় তৈরি হলে তা হলদিয়া ও সংস্থার শ্যামনগর কারখানার জন্য কাজে লাগানো হবে। পশ্চিমবঙ্গে ব্যাটারির চাহিদা বাড়ার ফলেই নতুন কারখানা গড়ে উঠছে।

এদিন শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘‘হলদিয়ায় শিল্পের বিকাশে জন্য আমাদের সরকার সবসময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পাশে আছে৷ আর আগামিদিনও থাকবে। আমাদের সরকার ও হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদ শিল্প সংস্থার উন্নয়নের জন্য সব রকমের সহায়তা করবে।’’

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ২ জানুয়ারি হলদিয়ায় এক্সাইডের ৭০০ কোটি টাকা বিনিয়োগে তৈরি নয়া পাঞ্চ গ্রিড ব্যাটারি কারখানার সূচনা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন: সবচেয়ে দীর্ঘ ও ভয়াবহ দাবানলে ধ্বংস হচ্ছে ক্যালিফোর্নিয়ার বৃহৎ বনাদি