স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: জৈবিক পদ্ধতিতে স্বাস্থ্যকর মাছ উৎপাদনে হলদিয়া ব্লক সক্রিয় ভূমিকা পালন করে৷ সেই অর্থে অভিনব নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আইআইটি খড়গপুরের আবিষ্কারক ও মাছ চাষিদের মধ্যে সরাসরি আলোচনার ব্যবস্থা করে হলদিয়া ব্লক মৎস্য দফতর৷

আইআইটি খড়গপুরের অধ্যাপক গবেষক ডঃ জয়ন্ত ভট্টাচার্য একটি জৈব যৌগিকের মাধ্যমে মাছের আকার এবং স্বাদ বাড়ানোর প্রযুক্তি আবিষ্কার করেছেন। এই জৈব যৌগিক আবিষ্কার যা কম সময়ে মাছের আকার বাড়াতে পারে৷ মাছের স্বাদ ও পুষ্টির গুনমানও বাড়ায়। আইআইটি খড়গপুর দ্বারা উৎপাদিত জৈব উপাদান মাছের স্বাদ এবং গুনমান নিশ্চিত করে। এটিই এর নতুনত্ব।

হলদিয়া ব্লকের মৎস্য চাষ সম্প্রসারণ আধিকারিক সুমন কুমার সাহু জানান, নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে হলদিয়ার মাছ চাষিরা বরাবরি আগ্রহী। সম্প্রতি আইআইটি খড়গপুরের এই অভিনব আবিষ্কারের বিষয়টি নজরে আসে৷ তাই এই আবিষ্কারক ও মাছ চাষিদের সরাসরি মতবিনিময়ের মাধ্যমে মাছ চাষের বিষয়ে আলোচনার ব্যবস্থা করা হয়।

আইআইটি খড়গপুরের অধ্যাপক গবেষক ডঃ জয়ন্ত ভট্টাচার্য জানান, হলদিয়ার অভিনব নিত্য নতুন মাছ চাষ খবর পেতেন৷ কিন্তু এই সব মাছ চাষিদের সঙ্গে সরাসরি মতবিনিময় করে খুব ভালো লেগেছে তাঁর। এটি প্রাকৃতিক জৈব নিষ্ক্রিয় অণু, কিছু বিচ্ছিন্ন ও উদ্ভাবিত প্রোবোটিক্স থেকে উৎপাদিত হয়। এটি মাছের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং এটি ফিস ফিড রূপান্তর অনুপাত উন্নত করে৷ বিশেষ অ্যামিনো অ্যাসিড বাড়ায় এবং মাছের কোষগুলিতে ফ্যাট ও প্রোটিনগুলির অভিন্ন বণ্টনের নিয়ন্ত্রণ করে৷ যার ফলস্বরূপ মাছের স্বাদ উন্নত করে।

এই আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন হলদিয়ার আমুর কার্প, পাবদা, পেংবা, মিল্ক ফিস, গিফট তেলাপিয়া, জয়ন্তী রুই প্রভৃতি মাছের চাষ করা প্রগতিশীল মাছ চাষিগন। হলদিয়া ব্লকের বিডিও তুলিকা দত্ত বন্দোপাধ্যায় স্বাগত জানান, মাছ চাষিদের পরিবেশ বান্ধব চাষের মাধ্যমে স্বাস্থ্যকর মাছ উৎপাদনের বিষয়ে জোর দেওয়া উচিত। হলদিয়া পঞ্চায়েত সমিতির মৎস্য কর্মাধ্যক্ষ গোকুল মাঝি হলদিয়ার মাছ চাষের নতুন নতুন উদ্যোগে মাছ চাষিদের উৎসাহিত করেন।