বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে মানুষ ক্রমেই নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপের উপরে। যার জেরে বাড়ছে একাকিত্ব থেকে শুরু করে একাধিক মানসিক সমস্যা। আবার একা মানুষ এই অ্যাপের মধ্য দিয়ে বর্তমানে খুঁজে নিচ্ছে নিজের সঙ্গী বা সঙ্গিনীকে। কিন্তু এই অতিরিক্ত অ্যাপ নির্ভরতা ডেকে আনছে বিপদ।

সঙ্গী বা সঙ্গীনি খুঁজে নেওয়ার ক্ষেত্রে সব থেকে প্রথমে যে নামটি আসে তা হল টিন্দার। প্রায় অধিকাংশ যুবক যুবতীরা বর্তমানে এই অ্যাপ ব্যবহার করে থাকেন। সম্প্রতি প্রকাশ হওয়া একটি রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে এই অ্যাপ থেকে প্রায় ৭০ হাজারের বেশী ছবি চুরি করা হয়েছে।

জানা গিয়েছে অপরাধীরা কেবলমাত্র মহিলাদের অ্যাকাউন্ট থেকে ছবি এবং প্রয়োজনীয় তথ্য হাতিয়ে ফেক প্রোফাইল বানাতে ব্যবহার করছে। মনে করা হচ্ছে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে তারা তাদের পরিচয় আড়াল করার জন্য তা ব্যবহার করতে পারে।

বেশ কিছু সাইবার সিকিউরিটি ফার্ম এর তদন্তের ফলে ফটো গুলি উদ্ধার করা গিয়েছে। এছাড়াও নতুন ১৬ হাজার টিন্দার আইডি উদ্ধার করা হয়েছে।

যদিও এখনও অবধি এটা জানা যায়নি কি কারণে ছবি গুলি ব্যবহার করা হবে। তবে মনে করা হচ্ছে এটি ব্যবহারকারীদের হয়রানি করা বা অন্য প্ল্যাটফর্মগুলিতে নকল প্রোফাইল তৈরি করার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হবে।

সাইবারসিকিউরিটি ফার্ম হোয়াইট অপ্সের এক গবেষক জানিয়েছেন যে তারা ছবিগুলিকে ম্যালিশাস সফ্টওয়্যার ব্যবসার জন্য পরিচিত একটি ওয়েবসাইট থেকে উদ্ধার করেছেন।

টিন্ডারের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছিলেন যে এই অ্যাপের বাইরে ব্যবহারকারীদের কোনও ছবি বা তথ্য ব্যবহার নিষিদ্ধ।

তারা জানিয়েছেন যাতে হাতানো ডেটা অফলাইনে সরিয়ে ফেলা যায় তার জন্য তারা সব পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

দেভেরা বলেছিলেন ‘তিনি খুব বিরক্ত হয়েছেন’ এগুলো দেখে। কেননা খুব সহজেই মহিলা ব্যবহারকারীদের টার্গেট করা হয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, এর মতো ডেটা সংরক্ষণ সাধারণত অপরাধীদের আকর্ষণ করে, যারা অন্যান্য প্ল্যাটফর্মে জাল অ্যাকাউন্ট করার জন্য বড় তথ্য সংগ্রহ করে রাখে।

এছাড়াও কোনও ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য এই পদ্ধতিকে আরও ভালভাবে ব্যবহার করতে পারে প্রতারকেরা বলেও জানিয়েছেন।

কিছু ডেটিং অ্যাপ্লিকেশন ইউরোপীয় ডেটা গোপনীয়তা আইন অনুসারে দেখা গেছে অনেকের ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস করছে।

মঙ্গলবার নরওয়েজিয়ান কনজিউমার কাউন্সিলের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

এটিতে দেখা গেছে যে অ্যাপ্লিকেশনগুলি অন্তত ১৩৫ টি তৃতীয় পক্ষের পরিষেবাগুলিতে ব্যবহারকারীদের ব্যাক্তিগত ডেটা শেয়ার করেছে।