আহমেদাবাদ: নিজের ৬৭তম জন্মদিনে মা-এর আশীর্বাদ নিয়ে গুজরাতে বহু প্রতীক্ষিত সর্দার সরোবার বাঁধের উদ্ঘাটন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ এই বাঁধের ফলে বহু কৃষক সেচের কাজে জল পাবে সহজেই৷ বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজেও সুবিধা হবে৷ একদিকে যেখানে আশার আলো দেখছে কৃষক পরিবারের, সেখানেই মধ্যপ্রদেশের বহু গ্রাম তাদের অস্তিত্ব সঙ্কটে ভুগছে, কারণ এই বাঁধের ৩০টি গেট খুললেই তার জল ভাসিয়ে দিতে পারে পরিবারগুলিকে৷

আরও পড়ুন: মোদীর জন্মদিনকে ‘সেবা দিবস’ হিসেবে উদযাপন বিজেপির

নর্মদা নদীর ওপরে তৈরি দেশের সবথেকে উঁচু (১৩৮মিটার) এই বাঁধটি বর্তমানের রূপ পেতে অপেক্ষা করেছে ৫৬বছর৷ এর সঙ্গে জড়িয়ে বহু তর্ক-বিতর্ক৷ প্রায় ৫৬বছরের অপেক্ষার পর আজ উদ্ঘাটন এই বাঁধের৷ ৩০টি গেট সাজানো হয়েছে রঙিন লেজার রশ্মিতে৷

আরও পড়ুন: মোদীজি-কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেন মমতা দিদি

প্রসঙ্গত, ১৯৬১সালে ভিত্তিপ্রস্তর দেওয়া হয় এবং ১৯৮৭সালে এর নির্মাণকার্য শুরু হয়৷ এই বাঁধ তৈরিতে যতটা কংক্রীট প্রয়োজন হয়েছে, তার থেকে মনে করা হচ্ছে, এটিই দেশের সবথেকে বড় বাঁধ৷ আমেরিকার গ্র্যান্ড কোলি ড্যাম-এর পর বিশ্বে দেশের এই বাঁধটিই সবথেকে বড় বলে জানা গিয়েছে৷ তবে বাঁধের ৩০টি গেট খুললে মধ্যপ্রদেশের ১৯২টি গ্রাম, মহারাষ্ট্রের ৩৩টি গ্রাম এবং গুজরাতের ১৯টি গ্রাম ভেসে যেতে পারে৷ তবে এ পরিস্থিতি এড়িয়ে যেতে মধ্যপ্রদেশের হাজার হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে খবর৷

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।