মুম্বই: শিয়রে গুজরাত নির্বাচন৷ রাজনৈতিক চাপেই কি পিছিয়ে যেতে চলেছে পদ্মাবতী ছবির মুক্তি? রানি পদ্মাবতীর সঙ্গে আলাউদ্দিন খিলজীর প্রেমের দৃশ্য ছবিতে রাখা হয়েছে এই অভিযোগে প্রথমে ছবির সেটে হামলা করে রাজস্থানের কর্ণি সেনা৷ পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনসালীকে নিগ্রহ করে তারা৷ সেই ঘটনার পর ওঠে নিন্দার ঝড়৷ সোচ্চার হয় বলিউড৷ এরপর কড়া নিরাপত্তা প্রহরায় শেষ হয় ছবির শ্যুটিং৷ ভাবা গিয়েছিল এখানেই বোধহয় শেষ হল বিতর্ক৷ কিন্তু কোথায় কি? এখন শোনা যাচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলির চাপে ছবি মুক্তিও সাময়িক আটকে যেতে পারে৷

দীপিকা পাডুকোন, শাহিদ কাপুর ও রণবীর সিং অভিনীত পদ্মাবতী ছবি ১লা ডিসেম্বর মুক্তি পাবে৷ তার আগে ছবির মুক্তি সাময়িক ভাবে পিছিয়ে দিতে উঠে পড়ে লেগেছে গেরুয়া শিবির৷ এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে এমনটাই দাবি করা হয়েছে৷

রিপোর্টে প্রকাশ, ছবি মুক্তি সাময়িক পিছোতে চেয়েছে বিজেপি৷ এই মর্মে আগামি কয়েক দিনের মধ্যে তারা নির্বাচন কমিশন ও সেন্সর বোর্ডকে চিঠিও দিতে চলেছে৷ বিজেপির এমন পদক্ষেপের কারণ, ৯ই ডিসেম্বর গুজরাত বিধানসভা নির্বাচন৷ তারা আশঙ্কা করছে, ইতিহাস বিকৃত করে পরিচালক ছবিতে রাণী পদ্মাবতী ও আলাউদ্দিন খিলজীর মধ্যে প্রেমের দৃশ্য দেখিয়েছেন৷ তাতে ক্ষত্রিয় সম্প্রদায়ের লোকেদের ভাবাবেগে আঘাত লাগতে পারে৷ নির্বাচনের আগে ছবি মুক্তি পেলে তা বিজেপির বিপক্ষে যাবে বলে আশঙ্কা করছে তারা৷

যদিও এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে গুজরাত নির্বাচনের কোন সম্পর্ক নেই বলে জানাচ্ছেন বিজেপি নেতারা৷ এক বিজেপি নেতা জানিয়েছেন, সেই সময় প্রতিবেশী রাজ্যে ভোটের পরিবেশ থাকবে৷ কোন অনভিপ্রেত ঘটনা যাতে না ঘটে সেই জন্য গুজরাত নির্বাচনের পর ছবি মুক্তির দাবি জানানো হবে নির্বাচন কমিশন ও সেন্সর বোর্ডের কাছে৷

অন্যদিকে কংগ্রেস মুখপাত্র শক্তি সিনহা গোহিল জানান, মুক্তির আগে বিভিন্ন দলের নেতাদের জন্য স্পেশাল স্ক্রিনিং এর ব্যবস্থা করা হোক৷ তারা যদি কোন আপত্তি তোলে তাহলে সেই দৃশ্য যেন ছবি থেকে বাদ দেওয়া হয়৷ তিনি আরও বলেন, ইতিহাসকে যদি বিকৃত করা হয়ে থাকে তাহলে সেই ছবিকে যেন মুক্তি না দেওয়া হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I