আমেদাবাদ: রাজনীতির ময়দান থেকে রাফায়েল এবার সোজা জায়গা করে নিল বিয়ের কার্ডে৷ গুজরাতের একটি পরিবার রাফায়েল যুদ্ধবিমান নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সমর্থনে এগিয়ে এসেছে৷ একধাপ এগিয়ে বিয়ের কার্ডেও আগত অতিথিদের সামনে রাফায়েল ‘সত্যতা’ তুলে ধরে কংগ্রেসের ‘মুখোশ’ টেনে খুলে বার করে দেওয়ার চেষ্টায় মজেছে ওই পরিবার৷ সেই চেষ্টা কতটা সফল হয়েছে তা জানা নেই৷ তবে এমন কার্ড নিশ্চিতভাবে মিডিয়াকে আকর্ষণ করেছে তা বলা যেতেই পারে৷

গুজরাতের সুরাটের বাসিন্দা যুবরাজ ও সাক্ষীর বিয়ের কার্ড যেন বিজেপির লিফলেট৷ কার্ডের মাধ্যমে অতিথিদের কাছে বিজেপিকে ভোট দেওয়া ও দলীয় তহবিলে অর্থ জমা করার আর্জি জানানো হয়েছে৷ বর বধূ জানিয়েছেন, তারা কোনও উপহার চাননা৷ বরং বিজেপিকে ভোট দিয়ে তাদের বিয়ের উপহার দিক অতিথিরা৷ কার্ডের নিচে পরিস্কার সেই কথা লেখা আছে৷

এতো গেল প্রথম অধ্যায়৷ দ্বিতীয় অধ্যায়ে আছে বহু বিতর্কিত রাফায়েল ইস্যু৷ কার্ডের পাতা ওল্টালেই রাফায়েল যুদ্ধবিমান নিয়ে বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া আছে৷ শিরোনামে লেখা, শান্ত থাকুন ও মোদীর উপর ভরস রাখুন৷ পরে লেখা, একজন অবুঝ ব্যক্তিও যুদ্ধবিমানের সঙ্গে সাধারণ বিমানের দামের তুলনা করবে না৷

এই নিয়ে দ্বিতীয়বার বিয়ের কার্ডে জায়গা করে নিয়েছে রাজনীতি৷ কয়েকদিন আগে এই গুজরাতের একটি বিয়ের কার্ড নিয়ে আলোচনা শুরু হয় সমগ্র দেশ জুড়ে। কারণ সেখানে উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে উপহারের কথা। আর সেই উপহারটিও বেশ চমকপ্রদ এবং খরচহীন। কারণ সেই বিয়ের কার্ডে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে ভোট দেওয়ার আবেদন করা হয়েছে অভ্যাগতদের কাছে।

অভিনব এই বিয়ের কার্ড এবং অবশ্যই ভোটের প্রচার ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। আরও উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে বিয়ের কার্ড একটি নয়। একাধিক বিয়েতে তৈরি হয়েছে এই ধরনের কার্ড। একটি বিয়ে চলতি মাসের ১১ তারিখে। অপরটি হবে পরের মাসের ১০ তারিখে।

যদিও এই ধরনের ঘটনা নতুন কিছু নয়। এর আগেও দক্ষিণ ভারতের এক শহরে এই ধরনের কার্ড দেখা গিয়েছিল। সেখানে বিয়ের কার্ডে বিজেপিকে ভোট দিয়ে জেতানোর আবেদন করা হয়েছিল।