নয়াদিল্লি: কর আদায় বেশি হলে তখন পণ্য পরিষেবা কর পর্ষদ (জিএসটি কাউন্সিল) করের হার কমাতে পারে৷ এক অফিসার জানিয়েছেন বলে সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর৷ প্রথম মাসে কর আদায় যথেষ্ঠ উৎসাহ ব্যাঞ্জক এবং ডিসেম্বর পর্যন্ত এই কর আদায় বৃদ্ধির প্রবণতা থাকলে তখন করের হার কমানো কথা ভাবা হবে৷

আরও পড়ুন: জিএসটি রিটার্নের পেনাল্টি মুকুব

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একআধিকারিক জানিয়েছেন, সাধারণ ভাবে কাজে লাগে এমন কোনও পণ্যের করের হার কমানো হতে পারে অথবা গ্রাহকদের সুবিধার্থে উপরের স্তরের করের হার কমানো হবে৷ অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির নেতৃত্বাধীন পণ্য পরিষেবা কর পর্ষদ নজর দেবে প্রবণতা খতিয়ে দেখতে৷ এই বিষয়ে প্রমাণ মিলবে নভেম্বরে কর আদায় কেমন হয় তা থেকে৷

আরও পড়ুন: জিএসটি-র দাম কমিয়ে পাঁচ দেশের খাবার খাওয়াচ্ছে শহরের এই রেস্তোরাঁ

জিএসটি চালু হওয়ার পর জুলাই হল প্রথম মাস, শুরুতেই ভাল ফল দেখিয়েছে৷ মোট কর দাতার ৬৪.৪২ শতাংশের কাছ থেকেই আদায় হয়েছে ৯২,২৮৩ কোটি টাকা ৷ এরমধ্যে ১৪,৮৯৪ কোটি টাকা এসেছে কেন্দ্রীয় জিএসটি থেকে৷ রাজ্য জিএসটি থেকে এসেছে ২২,৭২২কোটি টাকা এবং রাজ্য সমন্বয়ের জিএসটি পরিমাণ ৪৭,৪৬৯ কোটি৷ তাছাড়া ৭১৯৮ কোটি টাকা রয়েছে ক্ষতিপূরণ সেস বাবদ৷ জুলাই ছিল প্রথম মাস আশা করা হচ্ছে আস্তে আস্তে সব করদাতাই নয়া ব্যবস্থায় অভ্যস্ত হয়ে উঠলে করেরল পরিমাণও বেড় যাবে৷

আরও পড়ুন: জিএসটি’র বিভ্রান্তি কাটাতে ব্যবসায়ীদের কর্মশালা