নয়াদিল্লি: ঠিক যেন সিনেমার চিত্রনাট্য৷ বিয়ের দিন গুলিবিদ্ধ হল পাত্র৷ তাস্বত্ত্বেও জখম অবস্থাতে বিয়ে করতে এলো সে৷ কারণ পাত্রীপক্ষকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল৷ সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে গিয়ে হাসপাতাল থেকে সটান চলে আসে বিয়ের আসরে৷ পাত্রীর সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে আবার হাসপাতালে ভরতি হয় পাত্র৷

আরও পড়ুন: হিন্দু দেব-দেবীর ছবিতে সাজানো এই শৌচালয়কে ঘিরেই তুমুল বিতর্ক

সোমবার রাতে এমন ঘটনার সাক্ষী থেকেছে দিল্লির মদনগীর এলাকা৷ ঘোড়ায় চেপে বিয়ে করতে যাচ্ছিল ২৫ বছরের বাদল৷ আর ঘোড়ার গাড়ির সামনে ঢাক ঢোল বাজিয়ে পরিবারের সদস্য ও অতিথিরা তখন নাচে মগ্ন৷ পাত্রপক্ষ বিয়েবাড়ির কাছে আসতেই হঠাৎ বাদল শরীরে তীব্র যন্ত্রণা অনুভব করেন৷ কিছুক্ষণ বাদে লক্ষ্য করেন তার কাঁধ থেকে ঝড়ে পড়ছে অবিরাম রক্তের স্রোত৷ ঘোড়ার গাড়ি থেকে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে সে৷ সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে ডাক্তাররা জানান পাত্রের ডান কাঁধে গুলি লেগেছে৷

যথারীতি হাসপাতালে ভরতি করতে হয় বাদলকে৷ তিনঘণ্টা অপারেশনের পর কাঁধে ব্যান্ডেজ নিয়ে সোজা চলে যায় সে বিয়েবাড়িতে৷ সেখানে গিয়ে সম্পূর্ণ করে বিয়ে৷ তারপর কাঁধে যন্ত্রণা অনুভব করায় আবার বাদল ভরতি হয় হাসপাতালে৷ ডাক্তাররা জানিয়েছেন, তাঁর কাঁধের হাড়ের মাঝে গুলিটি আটকে রয়েছে৷ আরও একটি অপারেশন করা দরকার৷

আরও পড়ুন: Breaking News: শিকাগোয় হাসপাতালে বন্দুকবাজের হানা, নিহত ২

এদিকে দিল্লি পুলিশের কাছে খুনের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেছে বাদলের পরিবার৷ পুলিশকে বাদল জানায়, বাইকে করে আততায়ীরা আসে এবং খুব কাছ থেকে গুলি করে৷ সেই সময় জোরে ডিজে মিউজিক বাজছিল বলে কেউ গুলির আওয়াজ শুনতে পায়নি৷ প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ ঘটনাস্থলের কাছে একটি বাইক খুঁজে পায়৷ আততায়ীদের খোঁজ শুরু হয়েছে৷ পুরানো কোনও শত্রুতার জেরে এই খুন কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷