ফাইল চিত্র৷

নয়া দিল্লি: রথের রশিতে টান পড়ার অপেক্ষা৷ সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন জায়গায় পালিত হচ্ছে জগন্নাথদেবের রথাযাত্রা উৎসব৷ পুরী, আহমেদাবাদ, মাহেশ, মায়াপুর সর্বত্রই লক্ষ লক্ষ মানুষের ভিড়৷ কাতারে কাতারে মানুষ চলেছেন জগন্নাথ-বলরাম-সুভদ্রা দর্শনে৷ শনিবার সকালে দেশবাসীকে রথযাত্রার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ প্রত্যেক ভারতবাসী ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন টুইটারে এ বার্তাই দিয়েছেন তিনি৷ ইতিমধ্যেই বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ আহমেদাবাদের জগন্নাথ মন্দিরে ঘুরে এসেছে৷ ভোর ভোরই সেরেছেন মঙ্গল আরতিও৷

শনিবার সকাল সকাল তৈরি জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা৷ তারা আজ মাসির বাড়ি যাবে৷ সপ্তাহ কাটিয়ে উল্টো রথে ফের ঘরে ফেরা৷ ভোর থেকে পুরীর গুণ্ডিচা মন্দিরের সামনে ভক্তদের ভিড়৷ তিল ধারণের জায়গাটুকু নেই৷ এত মানুষের ভিড়৷ কোথাও কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে তার জন্য প্রস্তুত প্রশাসনও৷ কড়া নিরাপত্তার বলয়ে ঢাকা পড়শি রাজ্যের সুমদ্রপাড়ের এই শহর৷

নন্দীঘোষ (জগন্নাথদেবের রথ), তালধ্বজ (বলরামের রথ), দর্পদলন (সুভদ্রার রথ) সাজ সেরে প্রস্তুত৷ শুধু রশিতে টান পড়ার অপেক্ষা৷ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে পোহন্ডি উৎসব৷ ঢাক, কাঁসর, ঘন্টা বাজিয়ে পুরীর মূল মন্দির থেকে রথ অবধি নিয়ে যাওয়া হবে জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রাকে৷ তাদের যাত্রাপথ পরিষ্কার করা হবে সোনার ঝাঁটা দিয়ে৷ আরতির পর শুরু হবে রথের যাত্রা৷ শ্রীক্ষেত্র থেকে গুণ্ডিচা মন্দিরের পথে এগিয়ে যাবে রথ৷ সঙ্গে অগণিত ভক্তকূল৷