পূজা মণ্ডল, কলকাতা: হাতে গোনা আর কয়েকটা দিন৷ তার পরই বসন্ত উৎসবে মাতবে বাঙালি৷ আর হোলিতে অবাঙালি৷ শহর কলকাতার বড় বড় বাজারগুলিতে মজুত হয়েছে আবির, পিচকারি, বাহারি বেলুন, মুখোশ এবং বিভিন্ন ধরনের রঙ। হোল সেল মার্কেটগুলি থেকে খুচরো বিক্রেতারা এই সমস্ত সামগ্রী কিনে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করছেন ছোট ছোট দোকানে বা শহরের রাস্তায় রাস্তায়। রঙের মরশুমে রঙিন হয়ে উঠেছে চলতি পথের দুই ধার।

বসন্ত উৎসবের সময় রঙের এই রমরমা নতুন কিছু নয়৷ কিন্তু এবারের রঙ উৎসবে যোগ হয়েছে ভোট-উৎসব৷ যার ফলে পয়া বারো রঙ ব্যবসায়ীদের। বিশেষ করে সপ্তদশ লোকসভা ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণার পরই আবির মজুত করতে শুরু কর দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা৷ শহরের ভোট-উৎসবে এবার গেরুয়ার আধিপত্য বাড়ালেও রঙের বাজারে অবশ্য আধিক্য সবুজেরই৷

দোল বা হোলির ঠিক দু’মাস পর শহরের আকাশে ঠিক কোন রঙের আবিরের আধিক্য দেখা যাবে, তা এখনই বলা কঠিন৷ তবে বসন্ত উৎসবের পাশাপাশি ভোট-উৎসবের জন্য রঙের মরশুম থেকেই আবির মজুত করতে শুরু করে দিয়েছেন রাজনৈতিক দলের সমর্থকরা। শুধু তাই নয়, দোলের দিন নিজ নিজ দলের রঙ ও আবিরে নিজেদের রাঙিয়ে নিতে চান তাঁরা৷

মূলত বছরে এই একটা সময়ই রঙের ব্যবসা করে থাকেন ব্যবসায়ীরা। বলা বাহুল্য বছরে এই একটা সময়ই রঙ বা রঙের সামগ্রীর মাধ্যমে উপার্জন করে থাকেন ব্যবসায়ীরা। প্রত্যেক বছর দোলের মরশুমে যা বিক্রিবাটা হয়, এবার সেই তুলনায় অনেকটাই বেশি৷ দোলেও যে ভোটের রঙ লেগেছে, আবিরের রঙই তা বলে দিচ্ছে৷ গোলাপি, নীল, হলুদ, বেগুনীকে রঙকে ছাপিয়ে বিক্রি হচ্ছে সবুজ, কমলা ও লাল। এদের মধ্যে আবার সবুজ রঙের আবিরই সব থেকে বেশি বিকচ্ছে বাজারে। এমনটাই বলছেন ব্যবসায়ীরা।

কলকাতার বড় বাজার এলাকার রঙ ব্যবসায়ী দীপঙ্কর পাল বলছেন, ” প্রত্যেক বছর যা বিক্রি হয় সেই রকমই হচ্ছে। কিন্তু এ বছর ভোটের জন্য বিক্রি আরও বেড়ে গিয়েছে। যদিও ভোটের ফলাফল ঘোষণার আগে আবির বিক্রি হবে। তবুও ভোটের জন্য মানুষ রঙ কিনে তা জমিয়ে রাখছেন। সবথেকে যে রঙ বেশি বিক্রি হচ্ছে তা হল সবুজ।”

বড় বাজার এলাকার আরেক ব্যবসায়ী পরশ মনতের কথায়, “এখন সবুজের যুগ, তাই এই সময় সবুজ আবির সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে। অনেকে হোলির দিন দশেক আগে থেকেই সবুজ আবির ষ্টক করছে।”

বুদ্ধিজীবিমহলের মতে, লোকসভা ভোটে রাজ্যের শাসক দল চাপে রয়েছে। অনেকেই তৃণমূল ছেড়ে অন্যান্য দলে যোগ দিচ্ছেন। তবুও রঙের উৎসবে বিক্রি বাড়াচ্ছে সবুজ। যা অবশ্যই শাসক দলের আত্মবিশ্বাস বাড়াবে। ভোটের ফলাফল যাই হোক না কেন, রঙের মরশুমে বাড়তি উপার্জন রঙ ছড়িয়েছে রঙ ব্যবসায়ীদের মনে।